Berger Paint

ঢাকা, শুক্রবার   ২৯ মে ২০২০,   জ্যৈষ্ঠ ১৫ ১৪২৭

ব্রেকিং:
বাড়ি বাড়ি প্রশ্নপত্র পাঠিয়ে প্রাথমিকের পরীক্ষার পরিকল্পনা বিশ্বে করোনায় মৃতের সংখ্যা তিন লাখ ৬২ হাজার ছাড়িয়েছে লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশিকে গুলি করে হত্যা
সর্বশেষ:
যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় আরও ১২৯৭ জনের মৃত্যু ১০ জুন শুরু হচ্ছে বাজেট অধিবেশন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাসায় ৪ জনের করোনা শনাক্ত ব্রাজিলে একদিনে ২৬ হাজার ৪১৭ জনের করোনা শনাক্ত

অন্যকে ফাঁসাতে মুক্তিযোদ্ধা স্বামীকে হত্যা করেছে পাষান্ড স্ত্রী

হারুন অর রশিদ,দোয়ারাবাজার (সুনামগঞ্জ)

প্রকাশিত: ৪ নভেম্বর ২০১৯  

পঠিত: ৪৩৩
ছবি - সংগৃহীত

ছবি - সংগৃহীত

সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলার লক্ষিপুর ইউনিয়নের সুলতান পুর গ্রামের মৃত মোসলিম আলীর পুত্র মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারিক (৭০)।

রোববার (৩ নভেম্বর) উপজেলার লক্ষিপুর ইউনিয়নের সুলতান পুর গ্রামে মুক্তিযোদ্ধার নিজ বসত ঘরে তার স্ত্রী নির্মমভাবে অসুস্থ্য মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারিককে শাফল দিয়ে আঘাত করে মেরে ফেলে। পরে মৃত্যু আব্দুল বারিককে নিয়া দোয়ারাবাজার থানায় আসে তার স্ত্রী ও ছেলে। থানা থেকে মুক্তিযোদ্ধার লাশ দোয়ারাবাজার উপজেলা হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত ডা. মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারিককে মৃত ঘোষনা করে। এসময় দোয়ারাবাজার থানা পুলিশ নিহতের ছেলে মিলন মিয়া ও  স্ত্রী আছিয়া খাতুনকে  জিঙ্গাসাবাদের জন্য থানায় রেখে যান। ঘটনা স্থল পরিদর্শন করেন দোয়ারাবাজার থানার (ভারপাপ্ত) কর্মকর্তা ওসি আবুল হাসেম, ও সহকারী পুলিশ সুপার ( সার্কেল) মিজানুর রহমান। স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায় পুর্ব সত্রুতার জের ধরে অন্যকে ফাঁসাতেই ঘটনার সুত্রপাতঃ ২০১৭ সালে আফিজ আলীকে হত্যা করে মুক্তিযোদ্ধার বড় ছেলে সাবাজ আলী সে এখনো জেলে রয়েছে। ওই ঘটনাকে ঢাকা দিতেই পরিকল্পিতভাবে মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারিককে হত্যা করে তারই সহধর্মীনি স্ত্রী আছিয়া বেগম।

তবে পারিবারিকভাবে মুক্তিযোদ্ধার বড় মেয়ে ও ছেলে মিলন মিয়া জানায় পুর্ব সত্রুতার জের দরে তার বাবা মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারিককে হত্যা করেছে একই গ্রামের মৃত আসিক মিয়ার ছেলে কালাশাহ, রফিজ আলীর ছেলে রকিব মিয়া,  মানিক উল্লার ছেলে হান্নান ও তার স্ত্রী মিনারা বেগম।

দোয়ারাবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসেম বলেন বিষয়টি অত্যন্ত কঠোর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারিককে মারার সব তথ্য পেয়েছি। যে বা যারাই আর যত শক্তিশালী হউক তাকে গ্রফতার করা হবে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ছেলে ও স্ত্রীকে থানায় রাখা হয়েছে।

এই বিভাগের আরো খবর