Berger Paint

ঢাকা, সোমবার   ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০,   আশ্বিন ৫ ১৪২৭

ব্রেকিং:
করোনায় প্রতিটি মৃত্যুর দায় ট্রাম্পের, পদত্যাগ করুন: জো বাইডেন করোনায় সশস্ত্র বাহিনীর ১৫৮ জনের মৃত্যু ঢাকা থেকে ফ্লাইট চালু করছে সৌদি এয়ারলাইন্স আবরার হত্যা মামলা: আজ থেকে প্রতি কার্যদিবসে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু
সর্বশেষ:
আজ রবিবার থেকে বিএনপির সাংগঠনিক কার্যক্রম পুনরায় শুরু ট্রাম্পকে পাঠানো চিঠিতে মিললো বিষ আফগানিস্তানে বিমান হামলায় ৪০ তালেবান নিহত

আজ ঐতিহাসিক জাতীয় পতাকা উত্তোলন দিবস

প্রতিদিনের চিত্র ডেস্ক

প্রকাশিত: ২ মার্চ ২০২০  

পঠিত: ১৫৩
ছবি - সংগৃহীত

ছবি - সংগৃহীত

সবুজ আয়তক্ষেত্রের মধ্যে লাল বৃত্ত। সবুজ রং বাংলাদেশের সবুজ প্রকৃতি ও তারুণ্যের প্রতীক, বৃত্তের লাল রং উদীয়মান সূর্য, স্বাধীনতা যুদ্ধে আত্মোৎসর্গকারীদের রক্তের প্রতীক, আমাদের জাতীয় পতাকা।

আজ ২ মার্চ। ১৯৭১ সালের এই দিনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় ঐতিহাসিক ছাত্র সমাবেশে বাংলাদেশের মানচিত্রখচিত পতাকা প্রথম উত্তোলন করা হয়।

সবুজ, লাল, সোনালি- এই তিন রঙের পতাকাটি সেই যে বাংলার আকাশে উড়েছিল, তা আর নামাতে পারেনি পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠী। এর আগের দিন ১ মার্চ হঠাৎই জাতীয় পরিষদের অধিবেশন স্থগিত ঘোষণা করেন পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান। এ কারণে প্রতিবাদে ফেটে পড়ে গোটা দেশ। বিক্ষোভে উত্তাল হয় চারিদিক।

ছাত্র-জনতাসহ সাধারণ মানুষ নেমে আসে রাস্তায়। ঢাকা শহরের সব এলাকা থেকে লাখো মানুষ বাঁশের লাঠি হাতে খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে ছুটে আসে দিলকুশার পূর্বাণী হোটেলের দিকে। এ হোটেলেই আওয়ামী লীগের সংসদীয় দলের নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে বৈঠক চলছিল। লাখো মানুষের আকাশ-পাতাল কাঁপানো স্লোগান ও দাবির মুখে বৈঠক মুলতবি রেখে হোটেল থেকে বেরিয়ে আসেন বঙ্গবন্ধু। তিনি জনতার অনির্ধারিত মহাসমাবেশে সংক্ষিপ্ত ভাষণে ইয়াহিয়া খানের জাতীয় অধিবেশন স্থগিত ঘোষণার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে সর্বত্র তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান।

রাতে সার্জেন্ট জহুরুল হক হলে (ইকবাল হল) সাবেক ছাত্রনেতা শেখ ফজলুল হক মনি, সিরাজুল আলম খান, আবদুর রাজ্জাক, তোফায়েল আহমেদ, নূরে আলম সিদ্দিকী, শাজাহান সিরাজ, আ স ম আবদুর রব ও আবদুল কুদ্দুস মাখন দীর্ঘ সময় শলাপরামর্শ করে বঙ্গবন্ধুর উপদেশমতো বাংলাদেশের পতাকা, জাতীয় সঙ্গীত ও স্বাধীনতার প্রস্তাবের খসড়া তৈরি করেন। এই ৮ নেতা রাতেই এসব বিষয় নিয়ে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে দেখা করে তাদের পরিকল্পনার কথাও জানান এবং বঙ্গবন্ধু সে পরিকল্পনা অনুমোদন করেন। আজকের দিনে কী কী করতে হবে, দেশব্যাপী ৪ দিনের হরতালে দলের নেতারা কে কোথায় কী দায়িত্ব পালন করবেন, হরতাল সফল করার জন্য ঢাকার কোথায় কে কী করবেন- এসব চূড়ান্ত করা হয়। পরিকল্পনা অনুযায়ী ছাত্রনেতারা যে যার মতো দায়িত্ব ভাগ করে নেন।

২ মার্চ বিকালে সংবাদ সম্মেলন থেকে বঙ্গবন্ধু ৩ থেকে ৬ মার্চ দেশব্যাপী লাগাতার হরতাল কর্মসূচি ঘোষণা করেন। ৪ দিন হরতালের পর তিনি ৭ মার্চ ঐতিহাসিক রেসকোর্স ময়দানে লাখো মানুষের মহাসমাবেশে আন্দোলনের পরবর্তী কর্মসূচি দেবেন বলেও ঘোষণা দেন। এদিন বিকালেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছাত্রলীগ ও ডাকসু নেতাদের সঙ্গে পরামর্শ করে উভয় সংগঠনের সমন্বয়ে গঠন করেন ‘স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ’।

এর আগে সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় ছাত্র-জনতার বিশাল সমাবেশে উত্তোলন করা হয় স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম পতাকা। ‘জয় বাংলা’, ‘পিন্ডি না ঢাকা? ঢাকা ঢাকা’, ‘বীর বাঙালি অস্ত্র ধর বাংলাদেশ স্বাধীন কর’ ইত্যাদি স্লোগানে বাংলার আকাশ-বাতাস মুখর হয়ে ওঠে। দিকে দিকে শুরু হয় পাকিস্তানের পতাকা পোড়ানো। আর এই সময়টাকেই ছাত্রনেতারা বেছে নেন বাংলার স্বাধিকার আন্দোলনকে স্বাধীনতা সংগ্রামে পরিপূর্ণভাবে রূপান্তর করার মোক্ষম মুহূর্ত হিসেবে।

২ মার্চ একদিকে ছিল হরতালের প্রস্তুতি, অপরদিকে ব্যাপক গণজোয়ার। স্রোতের মতো মানুষ চারিদিক থেকে ছুটে আসতে থাকে বঙ্গবন্ধুর ৩২ নম্বরের ধানমণ্ডির বাড়িতে। উত্তাল ’৭১-এর নানা ঘটনা, আন্দোলন ও সংগ্রামের মধ্য দিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে চলে আসে একক নেতৃত্ব। তার দূরদর্শিতা ও রাষ্ট্রনায়কোচিত নেতৃত্বে সমগ্র জাতি ইস্পাত কঠিন ঐক্যবদ্ধ হয়ে জীবন উৎসর্গ করতে প্রস্তুতি নেয়। এর সঙ্গে বাংলার অবিসংবাদিত এই নেতার দৃঢ় মনোবল পাকিস্তান সরকারকে ভেতরে ভেতরে ভাবিয়ে তোলে ও দুর্বল করে দেয়।

 

এই বিভাগের আরো খবর