Berger Paint

ঢাকা, বুধবার   ০৫ আগস্ট ২০২০,   শ্রাবণ ২১ ১৪২৭

ব্রেকিং:
হত্যার দায় সিনহা ও সিফাতের ওপর চাপিয়েছে পুলিশ ইতালিতে প্রবেশের অপেক্ষায় হাজারও বাংলাদেশি, নিষেধাজ্ঞা শিথিলের আভাস বিশ্বে করোনায় মৃত ৬ লাখ ৯৭ হাজারের বেশি একদিনে পানিতে ডুবে প্রাণ গেল ১১ শিশুর
সর্বশেষ:
তাপপ্রবাহ অব্যাহত থাকবে : আবহাওয়া অধিদপ্তর কুমিল্লার সাবেক এমপি এটিএম আলমগীরের ইন্তেকাল এবার সীমান্ত ঘেঁষে হেলিপ্যাডের কাজ শুরু করল নেপাল, আরও চাপে ভারত রাজধানীতে ঢুকছে বন্যার পানি, অনেক এলাকা প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা

আজ কবি আবু জাফর ওবায়দুল্লাহর মৃত্যুবার্ষিকী

প্রতিদিনের চিত্র ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৯ মার্চ ২০২০  

পঠিত: ১৬০
ছবি - সংগৃহীত

ছবি - সংগৃহীত

কবি আবু জাফর ওবায়দুল্লাহর ১৯তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ।আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ ১৯৩৪ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি বরিশালে জন্মগ্রহণ করেন। সাবেক স্পিকার বিচারপতি আবদুল জব্বার খানের দ্বিতীয় ছেলে তিনি। ইংরেজিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সম্মান ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি গ্রহণ করে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষাগত পেশায় যোগ দেন। পরে পাকিস্তান সুপিরিয়র সার্ভিস পরীক্ষায় সমগ্র পাকিস্তানের দ্বিতীয় স্থান লাভ করে সিভিল সার্ভিসে যোগ দেন।

অসাধারণ মেধাবী ছাত্র আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ ছিলেন পেশাগত জীবনে একজন সফল ব্যক্তিত্ব। দেশের ও আন্তর্জাতিক সিভিল সার্ভিসে ছিল তার সফল পদচারণা। জাতিসঙ্ঘ ব্যবস্থাতেও তিনি দীর্ঘদিন খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (ফাও) এশীয় প্যাসিফিক অঞ্চলের পরিচালক ছিলেন। এ ছাড়া কৃষিমন্ত্রী ও রাষ্ট্রদূত হিসেবেও তিনি কাজ করেছেন।

তবে দেশবাসীর কাছে তার মুখ্য পরিচয় কবি হিসেবে। একুশের প্রথম সঙ্কলনে তার লেখা ‘কোন এক মাকে’- কবিতা প্রতি শহীদ দিবসেই পাঠ করা হয়। কবি আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ কাব্যজগতে তার নিজের ভুবন গড়ে তুলেছিলেন। অন্যসব কবিতা বাদ দিয়ে তার একটি মাত্র কবিতা ‘আমি কিংবদন্ততীর কথা বলছি’ দিয়েই তিনি বাংলা কবিতা সাহিত্যে বেঁচে থাকবেন অনন্তকাল।

কেবল কবিতা নয়, বাংলা ও ইংরেজি গদ্যেও তিনি ছিলেন অনবদ্য। ভোরের কাগজ, জনকণ্ঠ, সাপ্তাহিক-২০০০, ডেইলি স্টারসহ বাংলা ইংরেজি দৈনিকে তার উন্নয়ন ও পরিবেশ সংক্রান্ত কলাম বিষয়বস্তু ও রচনা শৈলী উভয় দিক থেকে অনন্য ছিল।

কবি আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ দেশের গবেষণা প্রতিষ্ঠান ‘বাংলাদেশ সেন্টার ফর অ্যাডভান্সড স্টাডিজের চেয়ারম্যান ও আন্তর্জাতিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান উইনরক ইন্টারন্যাশনালের গভর্নিং বোর্ডের সদস্য ছিলেন’।

তিনি বার্ডের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ছিলেন। সাহিত্যকর্মে অবদানের জন্য তাকে একুশে পদক ও বাংলা একাডেমি পদক প্রদান করা হয়। কবিতা সংগঠন ‘পদাবলী’র তিনি ছিলেন প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি। কবির মৃত্যুদিবস উপলক্ষে আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় জাতীয় জাদুঘরের মূল মিলনায়তনে এক স্মরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। এতে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত থাকবেন জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান।

এই বিভাগের আরো খবর