Berger Paint

ঢাকা, সোমবার   ২৫ জানুয়ারি ২০২১,   মাঘ ১১ ১৪২৭

ব্রেকিং:
কমলাপুরে পোশাক কারখানায় আগুন, নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের ১০ ইউনিট
সর্বশেষ:
ভারতে কংগ্রেস নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ রাজধানীর হাইকোর্টের সামনের রাস্তায় ছুরিকাঘাতে এক ব্যক্তি নিহত ঘন কুয়াশায় পাটুরিয়া-দৌলতদিয়ায় ফেরি চলাচল বন্ধ

আল্লামা শফী হত্যা মামলা তদন্তে- পিবিআই

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১২ জানুয়ারি ২০২১  


আল্লামা শফী হত্যা মামলা তদন্তে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) এর পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইকবালের নেতৃত্বে ১২ সদস্যের একটি তদন্ত দল হাটহাজারী মাদ্রাসা ও ফটিকছড়ি বাবুনগর মাদ্রাসা পরিদর্শন করেন।

 

মঙ্গলবার (১২ জানুয়ারী) সকাল ১১.৪০ টায় আল্লামা শফী হত্যা মামলার তদন্তে হাটহাজারী মাদ্রাসায় যান এই তদন্তকারী টীম।

 

তদন্ত টিম প্রথমে হাটহাজারী মাদ্রাসার অভ্যন্তরে আল্লামা শফির কক্ষসহ পরিদর্শন করেন। এরপর পরিদর্শন  করেন মাদ্রাসার শিক্ষা পরিচালক ও  হেফাজতে  ইসলামের বর্তমান আমীর জুনায়েদ বাবুনগরীর কক্ষ। এবং সিনিয়র শিক্ষক দিদার কাসেমী, মাদ্রাসা পরিচালনা পর্ষদের সদস্য শেখ আহমদ, মাদ্রাসার  শিক্ষক মাওলানা ওমর ও সিনিয়র শিক্ষক আশরাফ আলী নিজামপুরীর নিকট মামলার বিষয়ে সাক্ষ্যগ্রহণ করেন।

 

উপরোক্ত স্বাক্ষ্যদানকারীরা প্রত্যেকেই ছাত্র আন্দোলনের সময় আল্লামা শফী ও তার আশ-পাশের কক্ষ ভাংচুরের ঘটনাস্বীকার করলেও মাদ্রাসার অর্থ লুট-পাতের ঘটনা অস্বীকার করেছেন।

 

সাক্ষ্যগ্রহণের সময় তদন্তকারী দলের কাছে জুনায়েদ বাবুনগরী ও আশরাফ আলী নিজামপুরী তাদের বক্তব্যে বলেন, "মামলার এজাহারে বর্ণিত আসামীদের পরিচয় আমরা জানিনা এবং আসামীরা হাটহাজারী মাদ্রাসার কোন ছাত্র, শিক্ষক এবং কর্মচারী নন”। তারা আরো বলেন, "ছাত্র আন্দোলনের সময় আল্লামা শফীর উপর কোন নির্যাতন করা হয়নি এবং মামলাটি সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট”।

 

উল্লেখ্য, আল্লামা শফী হত্যার ঘটনাটি সাধারণ মানুষ এবং শফী অনুসারীদের মাঝে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। মাদ্রাসায় অবস্থানরত নিরপেক্ষ ও প্রত্যক্ষদর্শী বহু আলেম, শিক্ষক, ছাত্র আল্লামা শফীর মৃত্যুর বিষয়টি নিয়ে বিচার বিভাগীয় তদন্ত এবং দায়ী ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবী করেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন সিনিয়র শিক্ষক দুঃখ করে বলেন, ”আমার  চোখের  সামনে  মাদ্রাসার  ছাত্ররা  আল্লামা  শফীর  কক্ষ  ভাংচুর  করেছে। অথচ সাক্ষ্য প্রদানকারী ব্যক্তিগণ কেন বিষয়টিকে অস্বীকার করছে তা আমার বোধগম্য নয়! এ সময় অনেকেই মন্তব্য করেন, আল্লামা শফীর মতো ব্যাক্তির হত্যার যদি সুষ্টু বিচার না হয় তাহলে এ দেশে এরকম ঘটনার পূনরাবৃত্তি ঘটবে।


সাক্ষ্যগ্রহণের সময় আন্দোলনে অংশগ্রহণকারী ছাত্র নেতা মোঃ শহীদুল্লাহসহ প্রায় ১৫-২০ জন মাদ্রাসা ছাত্র উপস্থিত ছিল। ছাত্র আন্দোলনে অংশগ্রহণকারী কতিপয় ছাত্র আল্লামা শফীর ছেলে আনাস মাদানীর বিরুদ্ধে গত ০১ জানুয়ারী,  ২০২১ তারিখে  প্রচারিত  লিফলেটটি পুনরায় পিবিআই'র তদন্ত  টিমের সামনে মাদ্রাসার ছাত্রদের নিকট বিতরণ করেন। এ বিষয়ে মাদ্রাসার দুইজন আলেম বলেন, ছেলের অপকর্মের কারণে আল্লামা শফীর মতো একজন বুজুর্গ মানুষের জীবনে এমন ঘটনা ঘটল। তারা আরো বলেন, এটি কওমী অঙ্গনে একটি কলঙ্কজনক অধ্যায় হিসেবে বিবেচিত হবে।

 

আল্লামা শফীর মৃত্যুর ঘটনাটি অস্বাভাবিক উল্লেখ করে দাওরায়ে হাদীস বিভাগের একজন ছাত্র বলেছে, হযরতকে বহনকারী অ্যাম্বুলেন্স হাসপাতালে নিয়ে যেতে অনুমতির কথা বলে বাধা প্রদান করেছিল জুনায়েদ বাবুনগরীর খাদেম ছাত্রনেতা বেশধারী এনাম। এ  জাতীয়  দুষ্টচক্র  বর্তমানে  ঢাকার  বারিধারা, যাত্রাবাড়ি,  লালবাগ  ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আত্মগোপনে থাকায় আশঙ্কার কথা বলেন ছাত্রটি।

 

পিবিআই তদন্ত টিম হাটহাজারী মাদ্রাসা পরিদর্শন শেষে ফটিকছড়ি উপজেলার বাবুনগর মাদ্রাসায়ও যান। তদন্তকারী দল সেখানে- ছাত্র আন্দোলনের কয়েক দিন পূর্বে জুনায়েদ বাবুনগরীর ছেলের বিয়েতে মামুনুল হকসহ অন্যান্যদের গোপন বৈঠকের বিষয়টিও তদন্ত করবেন।

এই বিভাগের আরো খবর