Berger Paint

ঢাকা, সোমবার   ০১ জুন ২০২০,   জ্যৈষ্ঠ ১৮ ১৪২৭

ব্রেকিং:
লকডাউন শিথিলের পর লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। যা বিশ্বে আক্রান্তের সংখ্যায় সপ্তম। বিশ্বে করোনায় মৃত ৩ লাখ ৭০ হাজার ছাড়াল, আক্রান্ত ৬১ লাখের বেশি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) মৃত্তিকা, পানি ও পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপক ড. শাকিল উদ্দিন আহমেদ মৃত্যুবরণ করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।
সর্বশেষ:
২৪ ঘণ্টায় আমেরিকা-ব্রাজিলে নতুন আরও ৫৯৮-৪৮০ জন করোনায় মারা গেছে চট্টগ্রামে আরও ১১৮ জনের করোনা শনাক্ত নাসা গ্রুপের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম সপরিবারে করোনায় আক্রান্ত কলকাতা থেকে ফিরলেন আটকে পড়া ৪২ বাংলাদেশি

জীবনের বিনিময়ে কাজ! এমন সিদ্ধান্ত কেন? প্রশ্ন ফখরুলের

প্রতিদিনের চিত্র ডেস্ক

প্রকাশিত: ৫ মে ২০২০  

পঠিত: ১৯৭
বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ফাইল ছবি।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ফাইল ছবি।


করোনাভাইরাস মোকাবিলায় কোথাও সরকারের অংশগ্রহণ নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি সরকারের কাছে প্রশ্ন রাখেন- জীবনের বিনিময়ে কাজ, নাকি জীবনের জন্য কাজ?

মঙ্গলবার (৫ এপ্রিল) দুপুর গুলশানের চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, “সরকার কোথায়? সরকার এখন রাস্তাতেও নেই। অর্থাৎ গোড়ায়-আগায়, মনে-গোপনে, কার্যালয়ে নেই। সরকার এক জায়গায় আছে, শুধু টেলিভিশনে। আর কিন্তু তারা কোথাও নেই।”

তিনি সংকট মোকাবেলায় বিরোধী দলকে নিয়ে ঐক্যবদ্ধ উদ্যোগ এবং স্বনামধন্য অর্থনীতিবিদদের নিয়ে টাস্ক ফোর্স গঠন করার দাবিতে কর্ণপাত না করায় সরকারের সমালোচনা করেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, “বিএনপি দলীয় থেকে বলা হয়েছিল সর্বদলীয় একটা উদ্যোগ গ্রহণ করতে, কিন্তু তারা সেটা করেনি। এটা বাদ দিয়ে ব্যুরোক্রেট-বিশেষজ্ঞ ছাড়া স্বনামধন্য যারা আমাদের দেশে আছেন তাদের নিয়েও টাস্ক ফোর্স গঠন করার দাবি আমরা করেছিলাম। সেটাও করা হয়নি।

“স্বাস্থ্য খাতে একটা টেকনিক্যাল কমিটি করেছে। সেখানে দেখবেন অনেক বরেণ্য চিকিৎসক বাদ পড়েছে এবং এই ধরনের ভাইরাল ডিজিজ নিয়ে যারা লেখাপড়া কাজ করেছেন তাদেরকে সম্পৃক্তই করা হয়নি। সেখানে দলীয়করণ করা হয়েছে।”

প্রশ্ন রেখেছেন ছোট-বড় শপিংমল খুলে দেয়া নিয়ে-

ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে শর্ত সাপেক্ষে ১০ মে থেকে শপিং মল খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্তের সমালোচনা করে ফখরুল বলেন, “ছোট-বড় শপিংমল খুলে দিচ্ছেন খুব ভালো কথা। ঈদে যারা কাজ করে, কাপড় তৈরি করে, কেনাবেচা করে, ছোট-বড় ব্যবসায়ী তাদের জন্য দরকার প্রয়োজন আছে। তবে সেটা কী মানুষের জীবনের বিনিময়ে? একটা মাস কি অপেক্ষা বা নিয়ন্ত্রণ করা যেত না? আসলে সরকার ব্যর্থ হয়েছে, সমাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে ব্যর্থতার কারণে দেশকে এক ভয়াবহ পরিণতির দিকে ঠেলে দিয়েছে।”

মির্জা ফখরুল, “মানুষের জীবন-জীবিকা দুইটাই যেমন রাখতে হবে ঠিক, সংক্রমণ যেহেতু এখনও ঊর্ধ্বমুখী, সেহেতু আরো কিছুদিন অবরুদ্ধ সমাজিক দূরত্ব নীতিমালা কঠোরভাবে পালন করা উচিত ছিল। কারখানাগুলো এমনভাবে খোলা যেতে পারত যে, ধীরে ধীরে একটা কারখানায় সকল ব্যবস্থাকে নিশ্চিত করে, শ্রমিকদের স্বাস্থ্য নিরাপত্তা রয়েছে সেটাকে নিশ্চিত করে । সেটা তো করা হয়নি। বলা যেতে পারে কোনো রকমের কোনো দূরদর্শিতার প্রমাণ সরকারের দেখতে পাইনি। প্রতিটি ক্ষেত্রে তাদের অদূরদর্শিতা, সমন্বয়হীনতা এবং চরম উদাসীনতা এখানে প্রমাণ হচ্ছে।

 

 

এই বিভাগের আরো খবর