ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৬ মে ২০২২,   জ্যৈষ্ঠ ১২ ১৪২৯

ব্রেকিং:
চট্টগ্রাম, গাজীপুর, কক্সবাজার, নারায়ানগঞ্জ, পাবনা, টাঙ্গাইল ও ময়মনসিংহ ব্যুরো / জেলা প্রতিনিধি`র জন্য আগ্রহী প্রার্থীদের আবেদন পাঠানোর আহ্বান করা হচ্ছে। শিক্ষাগত যোগ্যতা- স্নাতক, অভিজ্ঞদের ক্ষেত্রে শিক্ষাগত যোগ্যতা শিথিল যোগ্য। দৈনিক প্রতিদিনের চিত্র পত্রিকার `প্রিন্ট এবং অনলাইন পোর্টাল`-এ প্রতিনিধি নিয়োগ পেতে অথবা `যেকোন বিষয়ে` আর্থিক লেনদেন না করার জন্য আগ্রহী প্রার্থীদের এবং প্রতিনিধিদের অনুরোধ করা হল।
সর্বশেষ:
ডাক্তারদের ফাঁকিবাজি রুখতে হাজিরা খাতায় দিনে তিনবার সই করার নির্দেশ! ১০০০ জনবল নিয়োগ দেবে ওয়ালটন ঢাকায় আসছে ফিফা বিশ্বকাপ ট্রফি সরকারকে ৬ দিনের আল্টিমেটাম ইমরান খানের ফাইনালের পথে বেঙ্গালুরু, লখনৌর বিদায় সেনেগালে হাসপাতালে আগুন; ১১ নবজাতকের মৃত্যু বিশ্বব্যাপী মাঙ্কিপক্স আক্রান্ত ২০০ ছাড়িয়েছে ঢাবিতে ফের ছাত্রলীগ-ছাত্রদল সংঘর্ষ

দেশে বন্ধ হচ্ছে থ্রিজি সেবা!

প্রতিদিনের চিত্র বিডি ডেস্ক

প্রকাশিত: ৯ এপ্রিল ২০২২  

ছবি- সংগৃহীত।

ছবি- সংগৃহীত।

 
বাংলাদেশ থেকে বিদায় নিচ্ছে তৃতীয় প্রজন্মের টেলিকম সেবা থ্রিজি। ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় বলছে, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ বিবেচনায় থ্রিজির কোনো প্রয়োজন নেই। ইতোমধ্যে সেবা গুটিয়ে নিচ্ছে রবি, যা শেষ হবে ২০২৩ সালেই। ওই বছর থেকে থ্রিজি সেবা সরিয়ে নেওয়া শুরু করবে গ্রামীণফোনও। আনুষ্ঠানিক দিনক্ষণ না জানালেও বৃহৎ দুই  মোবাইল ফোনে দ্রুতগতির ইন্টারনেটের সঙ্গে সাধারণ মানুষকে পরিচয় করিয়ে দিতে ২০১৩ সালের দেশে চালু হয় তৃতীয় প্রজন্মের টেলিকম সেবা থ্রিজি। এ প্রযুক্তির মাধ্যমে প্রথমবারের মতো  মোবাইল ফোনে টিভি দেখা, ভিডিও কলে কথা বলা, স্বল্পসময়ে মুভি ট্রান্সফারের অভিজ্ঞতার স্বাদ পান গ্রাহকরা। অথচ ফাইভজির আগমন ও ফোরজির দাপটে মাত্র ৮ বছরের মাথায় অস্তিত্ব হারাচ্ছে তৃতীয় প্রজন্মের টেলিকম সেবা।

 

একজন গ্রাহক থ্রিজি সেবায় সেকেন্ডে দুই এমবিপিএস গতি পান। সেখানে ফোরজিতে সর্বনিম্ন গতি সাত এমবিপিএস। ইতোমধ্যে দেশের সব টাওয়ারকে রূপান্তর করা হয়েছে ফোরজিতে। আবার বাজারে থ্রিজি ও ফোরজি হ্যান্ডসেটের দামও প্রায় কাছাকাছি।

 

বাজারে ফোরজি মোবাইল ফোন কিনতে আসা একজন ক্রেতা বলেন, সারাদেশের মানুষের হাতে হাতে ফোরজি ফোন। থ্রিজি আর চলছে না। তাই আমিও একটি ফোরজি ফোন কিনলাম।

 

এদিকে গ্রাহক চাহিদা বিবেচনায় থ্রিজি হ্যান্ডসেট উৎপাদন বন্ধ রেখেছেন ৯০ শতাংশ বাজার দখলকারী দেশীয় ১৪টি প্রতিষ্ঠান। এ বিষয়ে বাজারে  মোবাইল ফোন বিক্রেতারা বলেন, এখন ক্রেতা এসে ফাইভজি ফোন চায়। থ্রিজি এখন আর কেউ চায় না। আগের থ্রিজি ফোনগুলো এখন থাকলে আর বিক্রি করতে পারতাম না।

 

ইতোমধ্যে গ্রাহককে থ্রিজি হ্যান্ডসেট পরিবর্তনের অনুরোধ জানিয়ে প্রথম অপারেটর হিসাবে থ্রিজি সেবা বন্ধ করছে রবি। রবির চিফ করপোরেট অ্যান্ড রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স অফিসার সাহেদ আলম বলেন, আমরা আশা করছি, ২০২৩ সালের মধ্যে আমরা থ্রিজি সেবা বন্ধ করতে পারব।

 

তবে কিছুটা সময় নিয়ে থ্রিজি অপসারণের কাজ শুরু করতে চায় অন্য তিন অপারেটর। থ্রিজি সেবা বন্ধ করার বিষয়ে গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ইয়াসির আজমান বলেন, একসময় আমাদের থ্রিজি সেবা বন্ধ করতে হবে। আগামী ২০২৩ সালের মধ্যে আমরা এটি বন্ধ করে দেব।  

 

সম্প্রতি নিলাম থেকে কেনা তরঙ্গ দিয়ে মুঠোফোন অপারেটরদের ফোরজি নেটওয়ার্ক শক্তিশালী ও ফাইভজি সেবা চালুর প্রস্তুতি নিতে বলেছে সরকার।

 

সবাই যত দিন স্মার্টফোন ব্যবহার শুরু না করবে, তত দিন আমাদের টুজি রাখতে হবে মন্তব্য করে ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, আমার থ্রিজির কোনো বালাই নেই। ফোরজিকে আমাদের এখন মূলধারাই নিয়ে আসতে হবে।

 

উল্লেখ্য, মোবাইল অপারেটরদের তথ্য মতে, বর্তমানে বিশ্বের ৭৮টি দেশ ইতোমধ্যে থ্রিজি সেবা বন্ধ করে দিয়েছে।

 

এই বিভাগের আরো খবর