Berger Paint

ঢাকা, সোমবার   ২৬ অক্টোবর ২০২০,   কার্তিক ১০ ১৪২৭

ব্রেকিং:
গ্যাস সিলিন্ডারের আগুনে দগ্ধ একই পরিবারের ১০ জন কারওয়ানবাজারে বিডিবিএল ভবনে অগ্নিকাণ্ড দেশে ফিরছেন না পি কে হালদার নিউ ইয়র্কে জনতা এক্সচেঞ্জ হাউজে জালিয়াতি : ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা জাতীয় পরিচয়পত্র কার্যক্রমের নিয়ন্ত্রণ চায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়
সর্বশেষ:
বাংলাদেশ-ভারত বাণিজ্যিক সম্পর্ক উন্নয়নে কাজ করতে পারে : এফবিসিসিআই পদ্মা পাড়ি দিতে চরম ভোগান্তিতে যাত্রীরা কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের জন্য বিশ্বব্যাংক থেকে ৫০ কোটি ডলার সহায়তা চায় বাংলাদেশ

ধর্ষকদের শাস্তির দাবিতে প্রতিদিন শাহবাগে চলবে প্রতিবাদ কর্মসূচি

প্রতিদিনের চিত্র ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০ অক্টোবর ২০২০  

পঠিত: ১৪১
ছবি- সংগৃহীত

ছবি- সংগৃহীত

 

সারা দেশে চলমান ধর্ষণ ও নারী নিপীড়নের প্রতিবাদে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তিসহ ৯ দফা দাবি উঠেছে শাহবাগের মহাসমাবেশ থেকে। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত প্রতিদিন বিকেল চারটা থেকে রাত পর্যন্ত শাহবাগে এই প্রতিবাদ কর্মসূচি চলবে। 

 

গতকাল বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ছন্দে ছন্দে বিক্ষোভকারীরা স্লোগান দিয়ে প্রতিবাদ করে্ছেন। 'মুক্তিযুদ্ধের বাংলায় ধর্ষকদের ঠাঁই নাই', ধর্ষক লীগের আস্তানা ভেঙে দাও, গুঁড়িয়ে দাও, 'এসো ভাই এসো বোন, গড়ে তুলি আন্দোলন', পাহাড় কিংবা সমতলে, লড়াই হবে সমানতলে' এইসব স্লোগান দিয়ে বিক্ষোভ করছেন তারা।

 

বিক্ষোভকারীরা বলছেন, ধর্ষণের মনস্তত্ত্ব সমাজ থেকে দূর করতে রাজনৈতিক আন্দোলনের পাশাপাশি সাংস্কৃতিক আন্দোলনেরও প্রয়োজন আছে। সামাজিকভাবে ধর্ষকদের ও ধর্ষকের পৃষ্ঠপোষকদের সামাজিকভাবে বয়কট করতে হবে।

 

গত কালকের মহাসমাবেশ থেকে ‘নয় দফা’ দাবি তুলে ধরেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন। দাবিগুলো হলো-

১. দেশব্যাপী অব্যাহত ধর্ষণ ও নারীদের প্রতি সহিংসতার সঙ্গে সম্পৃক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করা। ধর্ষণ, নিপীড়ন বন্ধ ও বিচার করতে ব্যর্থ হওয়ায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে অবিলম্বে অপসারণ করতে হবে।

২. পাহাড় এবং সমতলে সকল আদিবাসী নারীদের ওপর সামরিক অথবা বেসামরিক সব ধরনের যৌন ও সামাজিক নিপীড়ন বন্ধ করতে হবে।

৩. মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ সরকারি, বেসরকারি সকল প্রতিষ্ঠানে নারী নির্যাতন বিরোধী সেল গঠন ও কার্যকর করতে হবে। Committee on the Elimination of all forms of discrimination against Women (CEDAW) সিডো সনদে বাংলাদেশকে স্বাক্ষর ও দেশে তার পূর্ণ বাস্তবায়ন করতে হবে। নারীদের প্রতি বৈষম্যমূলক সব ধরণের আইন ও প্রথা বিলোপ করতে হবে।

৪. ধর্মীয় এবং সব ধরনের সভা-সমাবেশে নারী বিরোধী বক্তব্য রাষ্ট্রীয়ভাবে শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে গণ্য করতে হবে।  সিনেমা, নাটক, সাহিত্য ও বিজ্ঞাপনে নারীদের পণ্য হিসেবে উপস্থাপন সম্পূর্ণভাবে বন্ধ করতে হবে। বিটিসিএলকে পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণে কার্যকরী ভূমিকা নিতে হবে। সুস্থধারার সাংস্কৃতিক চর্চায় সরকার থেকে পৃষ্ঠপোষকতা করতে হবে।

৫. যেকান মামলার তদন্তকালীন সময় পর্যন্ত ভিক্টিমকে মানসিক নিপীড়ন ও হয়রানি বন্ধ করতে হবে। অবশ্যই ভিক্টিমের পক্ষে আইনগত ও সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

৬. দেশের অপরাধবিজ্ঞান ও জেন্ডার বিশেষজ্ঞদের অন্তর্ভুক্ত করতে হবে 'নারী ও শিশু নির্যাতন' দমন ট্রাইব্যুনালে । দ্রুত ট্রাইব্যুনালের সংখ্যা বৃদ্ধি করে সকল অনিষ্পন্ন মামলা দ্রুত নিস্পত্তি করতে হবে।

৭. বিলোপ করতে হবে ধর্ষণ মামলার ক্ষেত্রে সাক্ষ্য আইন ১৮৭২-১৫৫(৪) ধারাকে  এবং মামলার ডিএনএ আইনকে সাক্ষ্য প্রমাণের ক্ষেত্রে শক্তিশালী ও কার্যকর করতে হবে।

৮. দেশের সকল পাঠ্যপুস্তকে নারীদের প্রতি অবমাননা ও বৈষম্যমূলক যে কোনো প্রবন্ধ, নিবন্ধ, গল্প, পরিচ্ছেদ, ছবি, নির্দেশনা ও শব্দ চয়ন পরিহার করতে হবে।

৯. দেশব্যাপী গ্রাম্য সালিশের মাধ্যমে ধর্ষণের অভিযোগকে ধামাচাপা দেওয়ার প্রচেষ্টাকে আইনে শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে গণ্য করতে হবে।

 

 

 

এই বিভাগের আরো খবর