ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৯ নভেম্বর ২০১৯,   অগ্রাহায়ণ ৫ ১৪২৬

ব্রেকিং:
৫ বছরের জন্য নিষিদ্ধ শাহাদাত কাল থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য ট্রাক-কাভার্ডভ্যান শ্রমিকদের কর্মবিরতি
সর্বশেষ:
শেষ টেস্ট খেলতে কলকাতার পথে টাইগাররা, মূল চ্যালেঞ্জ বোলারদের মনে করেন পেসার আল-আমিন হোসেন পেঁয়াজের পর চালের দাম বাড়ানোর ষড়যন্ত্র চলছে : নাসিম পদ্মা সেতুতে বসেছে ১৬তম স্প্যান আজ কার্গো বিমানে পেঁয়াজের প্রথম চালান আসছে বিটিআরসির কলসেন্টারে ৭ হাজার ৯০৮ অভিযোগ প্রধানমন্ত্রী আজ রাতে দেশে ফিরছেন তিনটি বিলে সম্মতি প্রদান করেছেন রাষ্ট্রপতি

নানা সংকটে কক্সবাজারের সামুদ্রিক জেলেরা

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ৬ মে ২০১৯   আপডেট: ৬ মে ২০১৯

পঠিত: ২২

একদিকে সমুদ্রে জলদস্যুদের অত্যাচার আর অন্যদিকে ঘাটে নেই মাছ বিপণনের স্বাস্থ্যকর পরিবেশ। সবমিলিয়ে কক্সবাজারের ফিসারি ঘাটের সামুদ্রিক জেলেরা রয়েছেন নানা সংকটে।

কক্সবাজারের বিমান বন্দর সড়কের পাশের মৎস অবতরণ কেন্দ্র ও পাইকারি বাজারের ভিড় প্রতিদিনকার। এখানে পাইকারদের কাছে জেলেরা সমুদ্র থেকে মাছ ধরে এনে এখানে বিক্রি করেন । কিন্তু এখন জেলেরা বলে, তারা জলদস্যুদের অত্যাচারে অতিষ্ট।

এ ব্যাপারে কোস্টগার্ড পুলিশের কাছে জানতে চাইলে তারা কোন সদুত্তর দিতে পারেননি।

এই মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের শেডটি ২০১২ সাল থেকে অকেজো। ঐ পুরাতন ভবনটি ভেঙে এখানে নতুন কেন্দ্র কবে চালু হবে, এ বিষয়ে জানতে চাইলে মৎস অবতরণ কেন্দ্রের প্রধান মো. শরিফুল ইসলাম স্পষ্ট কোন ধারণা দিতে পারেননি। এরপরে ফোনে যোগাযোগ করা হয় বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান দিলদার আহমদের সঙ্গে।

টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে আধুনিক মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র নির্মাণ যেমন জরুরী, তেমন প্রয়োজন মৎস্যজীবীদের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ।

একদিকে সমুদ্রে জলদস্যুদের অত্যচার আর অন্যদিকে ঘাটে নেই মাছ বিপণনের স্বাস্থ্যকর পরিবেশ। সব মিলিয়ে কক্সবাজারের ফিসারী ঘাটের সামুদ্রিক জেলেরা রয়েছেন নানা সংকটে।