ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৬ অক্টোবর ২০২১,   কার্তিক ১০ ১৪২৮

ব্রেকিং:
দৈনিক প্রতিদিনের চিত্র পত্রিকার `প্রিন্ট এবং অনলাইন ভার্সন`-এ প্রতিনিধি নিয়োগ পেতে আর্থিক লেনদেন না করার জন্য আগ্রহী প্রার্থীদের অনুরোধ করা হল। নিয়োগ পেতে কেউ অসদুপায়ে আর্থিক লেন-দেন করে থাকলে তার জন্য কর্তৃপক্ষ (প্রকাশক ও সম্পাদক) দায়ী থাকবেনা।
সর্বশেষ:
স্থানীয় সরকার নির্বাচনে বিতর্কিতদের বাদ দিয়ে ত্যাগীদের নাম পাঠানোর নির্দেশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ডিও লেটার জালিয়াতি, সতর্কতা জারি সাহেদকে জামিন দিতে হাইকোর্টের রুল আফগানিস্তান সীমান্তে আগ্রাসনের বিরুদ্ধে তালেবানের হুঁশিয়ারি সুদানের প্রধানমন্ত্রী আব্দাল্লাহ হামদক গৃহবন্দি বাংলাদেশে কেউ সংখ্যালঘু নয়: তথ্যমন্ত্রী

পানছড়িতে ত্রিপুরাদের ঐতিহ্যবাহী রিনাই, রিসা পোশাকের সাজে দেবীদূর্গা

দহেন বিকাশ ত্রিপুরা, খাগড়াছড়ি

প্রকাশিত: ১১ অক্টোবর ২০২১  

ছবি- প্রতিদিনের চিত্র।

ছবি- প্রতিদিনের চিত্র।

 

খাগড়াছড়ির পানছড়ির লতিবান ইউনিয়নের কুড়াদিয়াছড়া এলাকায় শ্রীশ্রী দূর্গাবাড়ী পূজামণ্ডপ। মণ্ডপে সিংহের ওপর দেবী দুর্গা আসীন। দশরথী দুর্গার পরনে শাড়ির পরিবর্তে ত্রিপুরাদের ঐতিহ্যবাহী পোশাক রিনাই ও রিসা।

 

কুড়াদিয়াছড়া এলাকায় খাগড়াছড়ি-পানছড়ি সড়কের পূজামণ্ডপে গত শুক্রবার (৮অক্টোবর) বিকালে গিয়ে দেখা যায়, প্রবেশমুখ থেকে মণ্ডপ পর্যন্ত সাজসজ্জার জন্য প্রস্তুতি চলছে। জানা যায়,  এলাকায় ২০০৩সাল থেকে কিরণ ত্রিপুরার উদ্যোগে শুরু করা হয় দূগাপূজা। কিন্তু গত ৫ বছর ধরে ত্রিপুরাদের নিজস্ব পোশাকে দেবী দূর্গাকে সাজিয়ে পূজা করে আসছে। ভিন্নধর্মী প্রতিমা তৈরিতে দর্শনার্থীরাও আসে দূর-দূরান্ত থেকে প্রতিবছর মন্ডপে ।

 

দেবীর ডান পাশে লক্ষ্মী ও গণেশ, বাম পাশে সরস্বতী ও কার্তিক । তাদের পরনেও ঐতিহ্যবাহী পোশাক ও অলংকার। দূর থেকে দেখেই মনে হয় দেবী স্বয়ং এসে উপস্থিত হয়েছেন সন্তানদের নিয়ে।

 

এ ব্যাপারে পূজা উদ্‌যাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক নিরঞ্জন ত্রিপুরা বলেন, প্রতিবছরের ন্যায় এবছরও আমাদের পূজা মন্ডপের যাবতীয় কার্যক্রম প্রায় সম্পন্ন। আমাদের মন্ডপে ত্রিপুরাদের ঐতিহ্যবাহী সাজের পূজার খবর ছড়িয়ে পড়েছে জেলার বাইরেও। আমাদের সর্বদা চেষ্টা থাকবে,  স্বাস্থ্যবিধি মেনে পূজা উৎসবমুখর পরিবেশে করতে।

 

পূজা উদযাপন কমিটি আরো জানিয়েছে, ভিন্ন সাজের প্রতিমার কারণে পূজোর সময় দর্শনার্থী বেশি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা ও নিরাপত্তার জন্য পূজামণ্ডপে জেলা প্রশাসনের নিরাপত্তা বাহিনীর পাশাপাশি নিজেদের স্বেচ্ছাসেবক টিমও গঠন করা হয়েছে, তারাও নিরাপত্তার জন্য প্রশাসনের সাথে থাকবে।

 

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ও সাংবাদিক তরুণ কুমার ভট্টাচার্য্য জানান, কেন্দ্রীয় নির্দেশনা মোতাবেক আমরা জেলা প্রশাসনের সাথে আলোচনা করেছি। তারাও সর্বাত্মক সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাস দিয়েছেন। এবছর জেলায় ৩টি স্থায়ী প্রতিমা পূজা, ১টি ঘট পূজাসহ মোট ৫৫টি মন্ডপে পূজা হবে বলে জানান তিনি।

 

পূজার সময় নিরাপত্তার বিষয়ে খাগড়াছড়ির পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আবদুল আজিজ জানান, স্বাস্থ্য বিধি মেনে পুলিশ ও আনসারসহ পুলিশের বিশেষ টিম নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে ইতিমধ্যে পূজা উদযাপন কমিটিদের সাথেও সভা করা হয়েছে। দূর্গাপূজাকে ঘিরে প্রতিটি মণ্ডপে পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে কঠোর নিরাপত্তা জোরদার করা হবে।

এই বিভাগের আরো খবর