Berger Paint

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০,   আশ্বিন ১৩ ১৪২৭

ব্রেকিং:
১৫ বছরের মধ্যে ১০ বছরই আয়কর দেননি ট্রাম্প! চির নিদ্রায় শায়িত অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম অস্ত্র মামলায় সাহেদ করিমের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ২৪ বলে ৮২, ৯ বলে ৭ ছক্কা, নতুন রেকর্ড আইপিএলে এমসি কলেজে স্বামীকে বেঁধে রেখে স্ত্রীকে গণধর্ষণ: ছাত্রলীগ নেতা রাজনও গ্রেফতার এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে গণধর্ষণ : রনি ও রবিউল গ্রেফতার ৭৪-এ পা রাখলেন শেখ হাসিনা
সর্বশেষ:
সৌদিতে শিডিউল ফ্লাইটের অনুমতি পেয়েছে বিমান ড. কামাল ও আসিফ নজরুল ঢাবি এলাকায় অবা‌ঞ্ছিত : সন‌জিত সাহেদের বিরুদ্ধে অস্ত্র মামলার রায় আজ কাশ্মীর সীমান্তে পাক-ভারত উত্তেজনা, এক সেনা নিহত

ফের পেঁয়াজের ডাবল সেঞ্চুরি

প্রতিদিনের চিত্র রিপোর্ট

প্রকাশিত: ৫ জানুয়ারি ২০২০  

পঠিত: ৩৩৬
ছবি - সংগৃহীত

ছবি - সংগৃহীত

পেঁয়াজের ভর মৌসুম চলছে। দেশি-বিদেশি পেঁয়াজে ভরপুর পাইকারি বাজারের গুদাম। খুচরা বাজারেও সরবরাহ ব্যাপক বেড়েছে। এমনকি প্রতিদিনই এই নিত্যপণ্যটি বিক্রি হচ্ছে ভ্রাম্যমাণ ভ্যানে। এমন অবস্থার মধ্যেও বৃষ্টির অজুহাত দেখিয়ে বাজারে পেঁয়াজের দাম বাড়তে শুরু করেছে হু হু করে।

গত তিন দিনের ব্যবধানে এর দাম বেড়েছে কেজিতে ১০০ টাকার বেশি। গত বুধবার প্রতি কেজি বিক্রি হয়েছে ১১০ টাকা। শনিবার বেড়ে পণ্যটি আবার ‘ডাবল সেঞ্চুরি’ হাঁকিয়েছে। কেজি প্রতি সর্বোচ্চ ২১০ টাকা বিক্রি হয়েছে।

এর আগে গত বছরের সেপ্টেম্বরে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে এর দাম সর্বোচ্চ প্রতি কেজি ৩০০ টাকা পর্যন্ত উঠেছিল। পরে আমদানি বাড়ায় ও দেশি পেঁয়াজ বাজারে আসায় দাম কিছুটা কমে আসে। গত সোমবার থেকে লঘুচাপের প্রভাবে বৃষ্টি হচ্ছে। এতে পেঁয়াজসহ শীতের সবজির ক্ষতি হবে- এমন আশঙ্কায় পাইকারি ব্যবসায়ীরা আবার দাম বাড়াতে শুরু করেছেন। এর প্রভাব পড়ছে খুচরা বাজারেও।

এদিকে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্র জানায়, কিছুদিন ধরে দেশের বিভিন্ন জায়গায় থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছে। এতে তীব্র শীত ও কুয়াশা পড়েছে। তবে এখন অনেক জায়গায় রোদও উঠতে শুরু করেছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত মাঠপর্যায় থেকে যেসব তথ্য পাওয়া গেছে, তাতে পেঁয়াজ চাষের তেমন ক্ষতি হয়নি। কেননা শীতকালে আবহাওয়া শুষ্ক থাকায় এবং দীর্ঘ সময় বৃষ্টি না হওয়ায় মাটি ছিল শুষ্ক। যে সামান্য পরিমাণ বৃষ্টি হয়েছে তাতে তেমন কোনো ক্ষতি হয়নি। বরং এই বৃষ্টি সেচের মতো কাজ করেছে। ফলে এর উৎপাদন বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এ ছাড়া শীত বাড়লে পেঁয়াজের ফলন ভালো হয়। এবার যেহেতু শীত বেশি পড়ছে সে কারণেও এর ফলন ভালো হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এ প্রসঙ্গে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের সরেজমিন উইংয়ের পরিচালক চণ্ডী দাস কুণ্ডু বলেন, কিছুদিন ধরে দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি ও কুয়াশা পড়লেও পেঁয়াজের তেমন কোনো ক্ষতি হয়নি। ইতিমধ্যে অনেক জায়গায় রোদ উঠতে শুরু করেছে।

পাইকারি ব্যবসায়ীরা বলেছেন, গত কয়েকদিন টানা বৃষ্টির কারণে ক্ষেত থেকে কৃষকরা পেঁয়াজ তুলতে পারেননি। এ ছাড়া সরবরাহ ব্যবস্থাও বাধাগ্রস্ত হয়েছে। এর প্রভাবে পাইকারি বাজারে পেঁয়াজের সরবরাহ কমে গেছে। যে কারণে দাম বাড়তে শুরু করেছে। তবে রোদ উঠলে এর সরবরাহ বাড়বে, তখন দাম কমে যাবে বলে তারা আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।

শনিবার রাজধানীর পেঁয়াজের পাইকারি আড়ত শ্যামবাজার ও কারওয়ান বাজার ঘুরে পেঁয়াজের কোনো সংকট দেখা যায়নি। বরং প্রতিটি গুদামে পেঁয়াজের বস্তা থরে থরে সাজিয়ে রাখতে দেখা গেছে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ট্রাকভরে পেঁয়াজ আসছে। সংশ্লিষ্টরা তা ট্রাক থেকে নামিয়ে গোডাউনে তুলছে। এদিন আড়তদারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত বুধবার প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ পাইকারিভাবে বিক্রি হয়েছে ৭৫-৮০ টাকা। যা বৃহস্পতিবার বিক্রি হয় ৮৫-৯০ টাকা। শুক্রবার কেজিতে ৮০ টাকা বেড়ে বিক্রি হয় ১৭০ টাকা। আর শনিবার কেজিতে আরও ১০ টাকা বেড়ে বিক্রি হয়েছে ১৮০ টাকা। এ ছাড়া আমদানি করা চায়না পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে প্রতি কেজি ৬৫ টাকা। যা তিন দিন আগে বিক্রি হয় ৩৫-৪০ টাকা। পাইকারি বাজারে দাম বাড়ায় খুচরা বাজারেও এর প্রভাব পড়েছে।

এদিকে সরকারের পক্ষ থেকে টিসিবির মাধ্যমে ৩৫ টাকা দরে পেঁয়াজ বিক্রি অব্যাহত আছে। বিভিন্ন দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানি হচ্ছে। দেশের উৎপাদিত পেঁয়াজ বাজারে এসেছে। কিন্তু এর পরও দাম ভোক্তার নাগালে আসছে না। বরং তিন দিনের ব্যবধানে বৈরী আবহাওয়ার অজুহাতে ব্যবসায়ীরা নিত্যদিনের এ পণ্যটির দাম আবারও বাড়িয়েছে।

অন্যদিকে সরকারি সংস্থা টিসিবি বলছে, গত বছর এই সময় দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ২৫-৩৫ টাকা। যা বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ১৮০-২০০ টাকা। সে ক্ষেত্রে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ৫৩৩ দশমিক ৩৩ শতাংশ বেশি দরে পণ্যটি বিক্রি হচ্ছে।

জানতে চাইলে কনজুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সভাপতি গোলাম রহমান বলেন, নানা অজুহাতে পেঁয়াজের দাম বাড়ানো হচ্ছে। গত বছর থেকেই এ দাম বাড়ার চিত্র দেখা যাচ্ছে। সরকারের নানা উদ্যোগে দাম কমতে থাকলেও সুযোগসন্ধানী ব্যবসায়ীরা অতি মুনাফা করার জন্য আবারও দাম বাড়াচ্ছে। যা কোনোভাবে অযৌক্তিক না। তাই বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকারের সজাগ দৃষ্টি থাকা উচিত। আর দাম নিয়ন্ত্রণে আনতে সরকারকে এবার শক্ত অবস্থানে যেতে হবে। দোষীদের চিহ্নিত করে শাস্তির আওতায় আনতে হবে। একই সঙ্গে দাম ভোক্তা সহনীয় করতে হবে।

এই বিভাগের আরো খবর