Berger Paint

ঢাকা, সোমবার   ২৫ জানুয়ারি ২০২১,   মাঘ ১১ ১৪২৭

ব্রেকিং:
কমলাপুরে পোশাক কারখানায় আগুন, নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের ১০ ইউনিট
সর্বশেষ:
ভারতে কংগ্রেস নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ রাজধানীর হাইকোর্টের সামনের রাস্তায় ছুরিকাঘাতে এক ব্যক্তি নিহত ঘন কুয়াশায় পাটুরিয়া-দৌলতদিয়ায় ফেরি চলাচল বন্ধ

বিশেষ তদন্ত প্রতিবেদন

বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষায় জালিয়াতি

প্রতিদিনের চিত্র ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৩ জানুয়ারি ২০২১  

ছবি- সংগৃহীত।

ছবি- সংগৃহীত।

 

বাংলাদেশ ব্যাংকে সহকারী পরিচালক নিয়োগ পরীক্ষায় জালিয়াতির ঘটনা ঘটেছে। ৭৪৫ জন কর্মকর্তাকে নিয়োগ দিতে যে প্যানেল তৈরী করা হয়েছিল, সেখান থেকে ২জনের নাম কেটে দিয়ে নতুন ২জনের নাম ঢুকানো হয়েছে।

 

‘পরীক্ষার উত্তরপত্রে নম্বর কম পাওয়া’ দুজনকে বেশি নম্বর দিয়ে নিয়োগ দেওয়ার জন্য প্যানেল চূড়ান্ত করা হয়েছিল। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অভ্যন্তরীণ অডিটে ধরা পড়েছিল এই ঘটনা। তখন নম্বর জালিয়াতি করে যে দুজনকে প্যানেলে ঢুকানো হয়েছিল তাদের আর নিয়োগ দেওয়া হয়নি। যে দুজন চূড়ান্ত প্যানেলে ছিলেন তাদেরই নিয়োগ দেওয়া হয়।

 

বাংলাদেশ ব্যাংকের বিশেষ একটি তদন্ত প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। ঘটনার প্রায় সাড়ে পাঁচ বছর অতিক্রম হলেও এখন পর্যন্ত কারও বিরুদ্ধে কঠোর কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। তবে কয়েকজন কর্মকর্তাকে সতর্ক করা হয়েছিল।

 

সংশ্লিষ্টরা বলেছেন, কেন্দ্রীয় ব্যাংক হচ্ছে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর অভিভাবক। একই সঙ্গে তারা দেশের অর্থনীতি দেখভাল করে। সরকারি খাতের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর কর্মকর্তা নিয়োগ প্রক্রিয়ায়ও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মাধ্যমে হয়। এ অবস্থায় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নিজস্ব কর্মকর্তা নিয়োগ প্রক্রিয়ায় যদি জালিয়াতির ঘটনা ঘটে তবে তা অবশ্যই দুশ্চিন্তার বিষয়।

 

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, উত্তরপত্র দুটিতে নম্বর কাটাকাটি করে জালিয়াতির কাজটি করেন নিয়োগ বিভাগের তৎকালীন একজন উপমহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম)। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনার সুপারিশ করা হয়েছিল। মানবসম্পদ বিভাগের তৎকালীন মহাব্যবস্থাপকের (জিএম) দায়িত্ব অবহেলা ও দুর্বল তদারকির কারণে ঘটনাটি ঘটেছে।

 

আরো পড়ুন: চট্টগ্রামে নির্বাচনি সংঘাতে নিহতের ঘটনায় আ.লীগ প্রার্থীসহ আটক ২৬

 

এ বিষয়ে জিএমের কাছে ব্যাখ্যা তলব করার কথাও বলা হয়েছিল। চূড়ান্ত প্যানেলটি যাচাই-বাছাই ছাড়াই স্বাক্ষর করে দায়িত্ব অবহেলার কারণে দায়িত্বপ্রাপ্ত তৎকালীন একজন যুগ্ম-পরিচালক, একজন উপ-পরিচালক ও একজন সহকারী পরিচালকের কাছে ব্যাখ্যা তলব করার সুপারিশ করা হয়েছিল।

 

 

 

 

 

 

এই বিভাগের আরো খবর