ঢাকা, বুধবার   ১৩ নভেম্বর ২০১৯,   কার্তিক ২৮ ১৪২৬

ব্রেকিং:
তূর্ণা এক্সপ্রেসের চালকসহ ৩ জন বরখাস্ত নিহতদের প্রত্যেক পরিবার পাবে ১ লাখ টাকা: রেলমন্ত্রী
সর্বশেষ:
আরমান ও সম্রাটের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদের মামলা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ১০ কর্মকর্তার অবৈধ সম্পদের খোঁজে দুদক ছাত্রলীগ নেতা সুদীপ্ত হত্যা মামলায় আ. লীগ নেতা মাসুম কারাগারে শিগগিরই পেঁয়াজের মূল্য ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে আসবে: শিল্পমন্ত্রী

বিশ্বের সবচেয়ে অদ্ভুত ও জনপ্রিয় ১০টি চা

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত:  

পঠিত: ৮৫

চা ব্যতীত বেশির ভাগ মানুষেরই দিন শুরুই হয় না। নাস্তার পরপরই চা চাই। আর তা না পেলে যে নাস্তার তৃপ্তিই হয় না। আর তা না হলে বাসা থেকে বের হয়েই চায়ের দোকানে, ছোট্ট ক্যাফে বা রেস্টুরেন্ট, যেখানে অবধারিত ভাবে অন্তত এক কাপ চা পাওয়া যাবে। এমনকি অনেকে তো চা পান না করে বাসা থেকেই বের হতে পারেন না। কিন্তু আমাদের পরিচিত লাল চা, দুধ চা, গ্রিন টিয়ের বাইরেও বিশ্বে অনেক রকমের চা আছে, আর সেগুলো খুবই অদ্ভুত। আর এই অদ্ভুত ১০টি চা আপনাদের সামনে তুলে ধরা হলো: 

১) পান্ডা ডাং টি: শুনে মনে হতে পারে তা পান্ডার মল থেকে তৈরি। আসলে তা নয়। বরং তা এক ধরনের চা, যা চীনের সিচুয়ানে চাষ হয় এবং এতে সার হিসেবে দেওয়া হয় পান্ডার মল-মূত্র। এটা বেশ দামি একটি চা।

২) টম্যাটো মিন্ট টি: ভূমধসাগরীয় এলাকায় পান করা হয় এই চা। লাল চায়ের সঙ্গে টম্যাটো এবং পুদিনা পাতা মিশিয়ে তা তৈরি করা হয়। এর স্বাদ অনেকটা স্যুপের মতো।

৩) স্পার্কলিং টি: কোকা-কোলা বা পেপসির পানি যেমন কার্বোনেটেড ও ঝাঁঝালো, এ ধরনের চা-ও তেমন কার্বোনেটেড ও ঝাঁঝালো হয়। তা সাধারণত ঠান্ডা করে পান করা হয়।

৪) পিউ-আর্হ টি: এটা একধরনের ফার্মেন্ট করা বা গাঁজানো চা। মূলত একধরনের গ্রিন টি, যাকে ফাঙ্গাসের মাধ্যমে গাঁজানো হয়। তা ইদানীং বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

৫) কম্বুচা: এটাও ইদানীং জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। তা আসলে লাল চা, কিন্তু একে ব্যাকটেরিয়া ও ইস্টের মাধ্যমে গাঁজানো হয়, ফলে তা টক হয়ে যায়।

৬) গার্লিক টি: আদা চায়ের কথা তো শুনেছেন, তাই বলে রসুনের চা? হ্যাঁ, রসুন দিয়েই তৈরি হয় এই স্বাস্থ্যকর চা।

৭) বাগ পুপ টি: পান্ডা ডাং টির মতো নিরীহ নয় এই চা। এটি আসলেই একধরনের পোকার মল থেকে তৈরি। এই পোকা হলো গ্রেইন মথ নামের এক প্রজাপতির লার্ভা, তারা শুধু বিশেষ একধরনের চা পাতা খায় এবং এটা মল হিসেবে বের করে দিলে সেটাই চা হিসেবে বিক্রি হয়।

৮) সিলোসাইবিন মাশরুম টি: এই চা তৈরি হয় একটি মাশরুম থেকে। এই চা একধরনের সাইকাডেলিক, অর্থাৎ তা মাদকের মতো কাজ করে ও হ্যালুসিনেশন তৈরি করে।

৯) স্যালভিয়া টি: এটি সিলোসাইবিন চায়ের মতোই হ্যালুসিনেশন তৈরি করে। তা মেক্সিকোতে পান করা হয়।

১০) ফার্মেন্টেড ইয়াক বাটার টি: একধরনের পাহাড়ি গরু হলো ইয়াক। তার দুধ থেকে মাখন তৈরি করা হয়। এই মাখন, সাধারণ চা ও লবণ একসঙ্গে মিশিয়ে কয়েক ঘণ্টা গাঁজানো হয় এবং এরপর পরিবেশন করা হয়। নেপাল, ভারত, ভুটান ও তিব্বতে এই চা পাওয়া যায়।