Berger Paint

ঢাকা, শনিবার   ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩,   মাঘ ২২ ১৪২৯

ব্রেকিং:
চট্টগ্রাম, গাজীপুর, কক্সবাজার, নারায়ানগঞ্জ, পাবনা, টাঙ্গাইল ও ময়মনসিংহ ব্যুরো / জেলা প্রতিনিধি`র জন্য আগ্রহী প্রার্থীদের আবেদন পাঠানোর আহ্বান করা হচ্ছে। শিক্ষাগত যোগ্যতা- স্নাতক, অভিজ্ঞদের ক্ষেত্রে শিক্ষাগত যোগ্যতা শিথিল যোগ্য। দৈনিক প্রতিদিনের চিত্র পত্রিকার `প্রিন্ট এবং অনলাইন পোর্টাল`-এ প্রতিনিধি নিয়োগ পেতে অথবা `যেকোন বিষয়ে` আর্থিক লেনদেন না করার জন্য আগ্রহী প্রার্থীদের এবং প্রতিনিধিদের অনুরোধ করা হল।
সর্বশেষ:
সৌদি আরবে এক বছরে ১৪৭ জনের মৃত্যুদণ্ড আ.লীগ জনগণকে দেওয়া ওয়াদা পূরণ করে : প্রধানমন্ত্রী বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজের খরচ বাড়ল দেড় লাখ মিয়ানমারে জরুরি অবস্থা আরও ছয় মাস বাড়ল আমি বাংলাদেশে বাবার কাছে থাকতে চাই: লায়লা রিনা

বোরো বীজতলা নিয়ে দুশ্চিন্তায় আক্কেলপুরের কৃষকরা

চৈতন্য চ্যাটার্জী, আক্কেলপুর (জয়পুরহাট)

প্রকাশিত: ২১ জানুয়ারি ২০২৩  

ছবি- প্রতিদিনেরচিত্র বিডি।

ছবি- প্রতিদিনেরচিত্র বিডি।

 

য়পুরহাটের আক্কেলপুরে গত কয়েক দিনের হাড় কাঁপানো শৈত্যপ্রবাহ এবং পর্যাপ্ত সূর্যের আলো না থাকার ফলে জনদুর্ভোগ সৃষ্টি হয়েছে। অতিরিক্ত ঘন কুয়াশা কারণে উপজেলার মানুষের রোগ বালাই যেমনটা বেড়েছে তেমনি, বীজতলায় ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। আবহাওয়া এ অবস্থায় চলতে থাকলে ক্ষয়ক্ষতি বাড়তে পারে বলে ধারনা করছে এলাকার কৃষকেরা। বর্তমান আবহাওয়া ও শৈতপ্রবাহের কারনে বীজতলা কোল্ড ইনজুরিতে পড়ায় কৃষকরা দুশ্চিন্তায় পড়েছে।

 

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে আক্কেলপুর উপজেলায় ৫টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌর সভায় ‘৫শত ৩০’ হেক্টর জমিতে ইরি-বোরো চাষের বীজতলা বপণ করা হয়েছে। ধান কাটা মাড়া, আলু উত্তোলন শেষে ইরি-বোরো আবাদের ব্যাপক প্রস্ততি নিয়েছে কৃষকরা। আগাম প্রস্তুতি হিসেবে ইরি-বোরো বীজ বপণ করা হয়েছে প্রায় এক মাস আগে।

 

গত কয়েক দিনের ঘন কুয়াশা আর তীব্র শীতের প্রভাবে কোল্ড ইনজুরিতে পড়ায় বীজতলা নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েছে এলাকার কৃষকরা। এভাবে ঘন কুয়াশা আর তীব্র শীত চলতে থাকলে বীজতলা ব্যাপক ক্ষতি হতে পারে। প্রচন্ড কুয়াশা আর শীতের কারনে কৃষকের সদ্য বপণকৃত বীজতলা লালচে, হলুদ হয়ে যাচ্ছে অনেক স্থানে বীজতলা মরা যাচ্ছে।

 

উপজেলা কৃষি অফিসের পরামর্শক্রমে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে সরেজমিনে দেখা যায় বীজতলা পলিথিন দিয়ে ঢেকে রাখা হয়েছে।

 

উপজেলার গোপীনাথপুর ইউনিয়েনের কৃষক পাইলট জানান, কয়েক দিনের ঘন কুয়াশার কারনে বীজতলা লালচে হয়ে যাচ্ছে। ১০ শতাংশ জমিতে বীজতলা তৈরি করেছি। আবহাওয়া খারাপ হওয়ায় আমার প্রায় ১০ শতাংশ বীজতলা নষ্ঠ হয়েছে। উপজেলা কৃষি অফিস থেকে বীজ তলার উপরে পলিথিন দেওয়ার জন্য পরামর্শ দিয়েছে ।

 

উপজেলার রুকিন্দীপুর ইউনিয়নের কৃষক মোঃ আবু তাহের কাজী বলেন এমন করে কুয়াশা আর আবহওয়া খারাপ থাকলে এবছর ইরি-বোরোর বীজতলা পাওয়া মুশকিল হয়ে পড়বে।

 

উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মোঃ ইমরান হোসেন জানান, বর্তমানে শৈতপ্রবাহের কারনে উপজেলার প্র্রায় ১ হেক্টর জমি বীজতলার কোল্ড ইনজুরিতে পড়েছে। কোল্ড ইনজুরি থেকে বীজতলাকে রক্ষার জন্য ২ থেকে ৩ সেন্টিমিটার পানি ধরে রাখা এবং একদিন পর পর বীজতলার পানি পাল্টে দেয়াসহ কৃষকদের বীজতলায় সাদা পলিথিন ব্যবহারের পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

এই বিভাগের আরো খবর