ঢাকা, শনিবার   ১৯ জুন ২০২১,   আষাঢ় ৫ ১৪২৮

ব্রেকিং:
মস‌জি‌দের দানবাক্সে মিলল ১২ বস্তা টাকা! রাবিতে ভিসির বাসভবনে তালা দিলেন বিতর্কিত নিয়োগপ্রাপ্তরা
সর্বশেষ:
পেরুতে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাস ১৩০০ ফুট গভীরে, নিহত ২৭ খুলনা হাসপাতালে আরও ১১ জনের মৃত্যু

সম্পাদক পরিষদের বিবৃতি

যেন হয়রানির শিকার না হয় প্রথম আলো

প্রতিদিনের চিত্র রিপোর্ট

প্রকাশিত: ২১ জানুয়ারি ২০২০  

ছবি- দৈনিক প্রতিদিনের চিত্র

ছবি- দৈনিক প্রতিদিনের চিত্র

সম্পাদক পরিষদ উচ্চ আদালতকে ধন্যবাদ জানিয়েছে প্রথম আলোর সম্পাদক ও প্রকাশক মতিউর রহমানকে জামিন দেওয়ায়। সাথে  বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে স্কুলছাত্র নাইমুল আবরারের দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যুকে ঘিরে প্রথম আলোর সম্পাদক ও প্রকাশক মতিউর রহমান, কিশোর আলোর সম্পাদক আনিসুল হক এবং প্রথম আলোর অপর চার কর্মীর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি ও তাঁদের বাসায় পুলিশি তল্লাশির ঘটনায় পরিষদ গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

সোমবার সম্পাদক পরিষদের পক্ষে সভাপতি মাহ্ফুজ আনাম ও সাধারণ সম্পাদক নঈম নিজাম উদ্বেগ প্রকাশ করে এই বিবৃতি দেন। তাঁরা বলেন, ‘আমরা শঙ্কা ও উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ করেছি, অস্বাভাবিক দ্রুততায় তাঁদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে এবং পুলিশ তৎপর হয়ে উঠেছে।’

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে মতিউর রহমান এবং অন্য সবার আইনানুগ পূর্ণ নিরাপত্তার নিশ্চয়তা দাবি করে তাঁরা বলেন, ‘তাঁদের সংবাদমাধ্যম (প্রথম আলো) যাতে কোনো ধরনের হয়রানির শিকার না হয়, একই সঙ্গে তারও নিশ্চয়তা দাবি করছি।’

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘ন্যায়বিচারের প্রতি আমাদের পূর্ণ শ্রদ্ধা রয়েছে। মতিউর রহমান এবং অন্যদের জন্য যেখানে সমন জারি করাই যথেষ্ট ছিল, সেখানে সে ঘটনায় তাঁর ও তাঁর সহকর্মীদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা গণমাধ্যম তথা সংবাদকর্মীদের ভীতি প্রদর্শন ও হয়রানির চেষ্টা স্পষ্ট সংকেত বহন করে।’ এ প্রসঙ্গে তাঁরা বলেন, বিশেষত প্রথম আলোর প্রথিতযশা সম্পাদক দুর্ঘটনাস্থলেই ছিলেন না।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, তথ্যপ্রযুক্তি আইনসহ মানহানির মামলার আইনগুলোর ক্রমবর্ধমান অপব্যবহার বাংলাদেশের গণমাধ্যমকে একটি নিবর্তনমূলক পরিস্থিতির মধ্যে ফেলে দিয়েছে এবং গণমাধ্যমকে প্রতিনিয়ত হয়রানি ও স্ব-আরোপিত নিয়ন্ত্রণের মুখে পড়তে হচ্ছে বলে মনে সম্পাদক পরিষদের সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ।  এসব তৎপরতা বর্তমান পরিস্থিতির সঙ্গে নতুন নেতিবাচক মাত্রা যোগ করবে।

সম্পাদক পরিষদের বিবৃতিতে আরো বলা হয়, আমরা আশঙ্কা প্রকাশ করতে বাধ্য হচ্ছি যে, এ অবস্থায় স্বাধীনভাবে সাংবিধানিক নিশ্চয়তাপ্রাপ্ত ভূমিকা পালন করা গণমাধ্যমের জন্য উত্তরোত্তর কঠিন হয়ে পড়েছে। অতএব এধরনের কার্যপরিকল্পনা থেকে সংশিষ্টদের ফিরে আসার জন্য আহ্বান করা হয়।

এই বিভাগের আরো খবর