Berger Paint

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০,   আশ্বিন ৯ ১৪২৭

ব্রেকিং:
বাংলাদেশ ও সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠক রোববার দক্ষিণ আফ্রিকায় ২ প্রবাসী বাংলাদেশিকে হত্যা করোনা চিকিৎসায় সফল অ্যাভিগান, জাপানি প্রতিষ্ঠানের দাবি সৌদি প্রবাসীদের জন্য চলতি মাসেই বিমানের বিশেষ ফ্লাইট ঈশ্বরদীতে আওয়ামী লীগের দুটি নির্বাচনী অফিস ভাংচুর-গুলিবর্ষণ
সর্বশেষ:
করোনা রোধে স্বাস্থ্যবিধিই ভরসা, ভ্যাকসিন মিলছে না এ বছর প্রাথমিক স্কুল খোলার প্রস্তুতির নির্দেশ ইতালির ভেনিস সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বাংলাদেশির জয়

সাভারে ২০ লাখ টাকার নকল প্রসাধনী ধ্বংস

সাভার প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২১ নভেম্বর ২০১৯  

পঠিত: ২৬৪১
ছবি - সংগৃহীত

ছবি - সংগৃহীত

নকল প্রসাধনী তৈরি ও বাজারজাত করার অভিযোগে সাভারের একটি প্রতিষ্ঠানের মালিক ও ম্যানেজারকে তিন লাখ টাকা অর্থদণ্ড দিয়েছে র‌্যাব-৪ এর ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় কারখানাটির তৈরি প্রায় ২০ লাখ টাকা মূল্যের ১৭ প্রকারের প্রসাধনী ধ্বংস করা হয়েছে।

অভিযান চলাকালে ইয়াফি বিউটি কনসেপ্ট কেয়ার লি. নামের কোম্পানিটির মালিক মো. নাজমুল হকের (৪০) কাছ থেকে দুই লাখ টাকা ও ম্যানেজার মো. কুতুব উজ্জামানের কাছ থেকে এক লাখ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।  

এতে নেতৃত্ব দেন র‌্যাব সদর দপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আনিসুর রহমান। এ সময় বিএসটিআই ও র‌্যাব-৪ এর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন।

বৃহস্পতিবার র‌্যাব-৪ (সিপিসি-২) এর কোম্পানি কমান্ডার মেজর শিবলী মোস্তফা স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, দীর্ঘদিন ধরে সাভারের দেওগাঁও এলাকায় বিএসটিআই এর অনুমোদন ছাড়াই অবৈধভাবে ফেসিয়াল, হেয়ার জেল, আফটার সেভ ও লোশনসহ প্রায় ১৭ প্রকারের নকল প্রসাধনী তৈরি করে আসছিল ইয়াফি বিউটি কনসেপ্ট কেয়ার লি. নামক প্রতিষ্ঠানটি। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে খবর পেয়ে গতকাল বুধবার রাতে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে কারখানাটিতে তৈরি বিপুল পরিমাণ প্রসাধনী সামগ্রীর মান যাচাই করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

এ সময় ২০ লাখ টাকা মূল্যের ১৭ প্রকারের নকল প্রসাধনী চিহ্নিত করে ধ্বংস করা হয়। এছাড়া নকল পণ্য তৈরি ও বাজারজাতকরণের অভিযোগে ইয়াফি বিউটি কনসেপ্ট কেয়ার লি. কোম্পানির মালিক মো. নাজমুল হকের (৪০) কাছ থেকে দুই লাখ টাকা ও ম্যানেজার মো. কুতুব উজ্জামানের কাছ থেকে এক লাখ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠান ও জড়িতদের বিরুদ্ধে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনের ৪৩ ও ৫৩ ধারায় মামলা করা হয়েছে।

 

এই বিভাগের আরো খবর