ঢাকা, শনিবার   ২৫ জুন ২০২২,   আষাঢ় ১১ ১৪২৯

ব্রেকিং:
চট্টগ্রাম, গাজীপুর, কক্সবাজার, নারায়ানগঞ্জ, পাবনা, টাঙ্গাইল ও ময়মনসিংহ ব্যুরো / জেলা প্রতিনিধি`র জন্য আগ্রহী প্রার্থীদের আবেদন পাঠানোর আহ্বান করা হচ্ছে। শিক্ষাগত যোগ্যতা- স্নাতক, অভিজ্ঞদের ক্ষেত্রে শিক্ষাগত যোগ্যতা শিথিল যোগ্য। দৈনিক প্রতিদিনের চিত্র পত্রিকার `প্রিন্ট এবং অনলাইন পোর্টাল`-এ প্রতিনিধি নিয়োগ পেতে অথবা `যেকোন বিষয়ে` আর্থিক লেনদেন না করার জন্য আগ্রহী প্রার্থীদের এবং প্রতিনিধিদের অনুরোধ করা হল।
পদ্মায় স্বপ্নপূরণের ক্ষণগণনা
১৮দিন
:
১৯ঘণ্টা
:
০৬মিনিট
:
১০সেকেন্ড
সর্বশেষ:
সবাইকে কৃতজ্ঞতা জানালেন প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর মধ্য দিয়ে দেশ নতুন যুগে প্রবেশ করেছে: শিক্ষামন্ত্রী মাথা নোয়াইনি, কখনো নোয়াবো না: প্রধানমন্ত্রী জনসভাস্থলে লাখো মানুষের ঢল দেশে বন্যায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৭৩ পদ্মা সেতুতে টোল দিলেন প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করা হলো স্বপ্নের পদ্মা সেতুর কারো বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই, বললেন প্রধানমন্ত্রী

৩০ বছর পর অস্ট্রেলিয়াকে ওয়ানডে সিরিজে হারালো লঙ্কানরা

স্পোর্টস ডেস্ক

প্রকাশিত: ২২ জুন ২০২২  

ছবি- সংগৃহীত।

ছবি- সংগৃহীত।

 

শেষ ওভারে জয়ের জন্য অস্ট্রেলিয়ার প্রয়োজন ১৯ রান। দাসুন শানাকার করা ওভারের প্রথম পাঁচ বলে ৩ বাউন্ডারিসহ ১৪ রান তুলে নেন ম্যাথিউ কুনেম্যান। সিরিজে সমতা টানতে শেষ বলে অজিদের পক্ষে সহজ সমাধান ছিল ছক্কার মার। সেই ছয় হাঁকাতে গিয়েই কুনেম্যান ধরা পড়েন চারিথ আসালাঙ্কার হাতে। আর ৪ রানের জয়ে ১ ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ নিশ্চিত করে শ্রীলঙ্কা। ঘরের মাটিতে ৩০ বছর পর অস্ট্রেলিয়াকে ওয়ানডে সিরিজে হারালো লঙ্কানরা। সর্বশেষ ১৯৯২ সালে শ্রীলঙ্কার মাটিতে ওয়ানডে সিরিজে হেরেছিল অস্ট্রেলিয়া।

 

টি-টোয়েন্টি সিরিজে ২-১ ব্যবধানের  জয় পায় অস্ট্রেলিয়া। ৫ ম্যাচ সিরিজের ওয়ানডে সিরিজের শুরুটাও দারুণ হয়েছিল অজিদের। এরপরই খোলস ছেড়ে বেরিয়ে আসে শ্রীলঙ্কা। জিতে নেয় টানা তিন ম্যাচ।

 

মঙ্গলবার সিরিজের ৪র্থ ওয়ানডেতে আগে ব্যাট করে চারিথ আসালাঙ্কার দারুণ সেঞ্চুরি এবং ধনঞ্জয়া ডি সিলভার ফিফটিতে ভর করে ২৫৮ রানের সংগ্রহ পায় শ্রীলঙ্কা।


রান তাড়ায় অস্ট্রেলিয়ার ডেভিড ওয়ার্নার ছাড়া কেউই তেমন লড়াই করতে পারেনি। অজি ওপেনার ১ রানের জন্য ক্যারিয়ারের ১৯তম ওয়ানডে সেঞ্চুরি মিস করেন। আর ৫০ ওভারে ২৫৪ রান তোলে অলআউট হয় অস্ট্রেলিয়া।

 

লঙ্কানদের দেয়া ২৫৯ রানের টার্গেটে ব্যাটিংয়ে নেমে ৭ উইকেট পর্যন্ত ক্রিজে ছিলেন ডেভিড ওয়ার্নার। অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ ডাক মারার পর মিচেল মার্শ (২৬), ট্রাভিস হেড (২৭) ও প্যাট কামিন্স (৩৫) বাদে আর কেউই পার হতে পারেননি বিশের কোঠা।

 

১১২ বলে ১২ বাউন্ডারিতে ৯৯ রান করে ওয়ার্নার যখন ধনঞ্জয়া ডি সিলভার শিকার হন, অস্ট্রেলিয়ার রান তখন ৭ উইকেটে ১৯২। সেখান থেকে লড়াই জমিয়ে তুলেছিলেন প্যাট কামিন্স, ম্যাথিউ কুনেম্যানরা। কামিন্স ইনিংসের ৭ বল বাকি থাকতে চামিকা করুনারতেœর বলে আউট হন। শেষ উইকেটে কুনেম্যান জয়ের আভাস দিয়েও পরাস্ত হন।

এই বিভাগের আরো খবর