ঢাকা, শনিবার   ২৫ জুন ২০২২,   আষাঢ় ১১ ১৪২৯

ব্রেকিং:
চট্টগ্রাম, গাজীপুর, কক্সবাজার, নারায়ানগঞ্জ, পাবনা, টাঙ্গাইল ও ময়মনসিংহ ব্যুরো / জেলা প্রতিনিধি`র জন্য আগ্রহী প্রার্থীদের আবেদন পাঠানোর আহ্বান করা হচ্ছে। শিক্ষাগত যোগ্যতা- স্নাতক, অভিজ্ঞদের ক্ষেত্রে শিক্ষাগত যোগ্যতা শিথিল যোগ্য। দৈনিক প্রতিদিনের চিত্র পত্রিকার `প্রিন্ট এবং অনলাইন পোর্টাল`-এ প্রতিনিধি নিয়োগ পেতে অথবা `যেকোন বিষয়ে` আর্থিক লেনদেন না করার জন্য আগ্রহী প্রার্থীদের এবং প্রতিনিধিদের অনুরোধ করা হল।
পদ্মায় স্বপ্নপূরণের ক্ষণগণনা
১৮দিন
:
১৯ঘণ্টা
:
০৬মিনিট
:
১০সেকেন্ড
সর্বশেষ:
সবাইকে কৃতজ্ঞতা জানালেন প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর মধ্য দিয়ে দেশ নতুন যুগে প্রবেশ করেছে: শিক্ষামন্ত্রী মাথা নোয়াইনি, কখনো নোয়াবো না: প্রধানমন্ত্রী জনসভাস্থলে লাখো মানুষের ঢল দেশে বন্যায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৭৩ পদ্মা সেতুতে টোল দিলেন প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করা হলো স্বপ্নের পদ্মা সেতুর কারো বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই, বললেন প্রধানমন্ত্রী

লক্ষ্মীপুরে এক দিনমজুর জমি কিনেও দখলে যেতে পারছেন না

অ আ আবীর আকাশ, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৫ জুন ২০২১  

ছবি- প্রতিদিনের চিত্র।

ছবি- প্রতিদিনের চিত্র।

 

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার ১৯ নং তেয়ারিগঞ্জ ইউনিয়নের 8নং ওয়ার্ডের এমলিতলার মৃত আখতারুজ্জামানের ছেলে বেলাল হোসেন জমি কিনে দখলে যেতে পারছেন না বলে জানা গেছে।

 

চরমনসা গ্রামের বেল্লালের বাড়ির দিনমজুর বেল্লাল হোসেন ৩১ শতাংশ নাল জমি ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা  দামে স্থানীয় সাইফুল ইসলামের সাথে ১ লাখ ৫০ হাজার টাকায় বায়না করলে জমির মালিক সাইফুল ইসলাম বেলালকে দখলে যেতে বলেন। বাকি টাকার মধ্যে ১লাখ ৫০ হাজার টাকা ৬ মাস মাস পরে ও বাকি ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা জমি রেজিস্ট্রি করার সময় পরিশোধ করবেন বেলাল।

 

জমি দখলে গিয়ে বসত ঘর তোলার সময় স্থানীয় তহশীলদার এসে বাধা দেয় ও উক্ত জমি সরকারি বলে বেলালকে দখল ছেড়ে যেতে নির্দেশ দেয়। ঘটনাটি সাইফুল ইসলামকে জানালে তিনি উক্ত জমি তার বাবার নিজস্ব সম্পত্তি বলে বেলালকে দখলে থাকতে বলেন। সাইফুল এও বলেন যদি বেলাল দখল ছেড়ে যায় তাহলে তাকে জমি বা টাকা কোনটাই দেয়া হবে না। এমনটি স্থানীয় নাসির মিয়া, বাচ্চু মিয়া ও মসজিদের ইমামও জানিয়েছেন।

 

এদিকে স্থানীয় তহশীলদার, ইউনিয়ন পরিষদ সদস্যসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও বিক্রেতা সাইফুল ইসলামের উপস্থিতিতে দখল না ছেড়ে দেয়ায় নিবার্হী কর্মকর্তা (ভূমি) ভেকো দিয়ে বেলালের বসতঘর গুড়িয়ে দেয়। তখন সাইফুল বেলালকে অন্যত্র জমি দেয়ার আশ্বাস দিলেও অদ্যবধি জমি না দেয়ায় বোনের বাড়ীতে থেকে মানবেতর জীবনযাপন করছেন দিনমজুর বেলাল।

 

বেলাল কান্নাজড়িত কণ্ঠে এপ্রতিবেদকের কাছে বলেন- 'আমি এ জমি কিনতে গিয়ে পাঁচ লাখ ৭০ হাজার টাকা খরচ করেছি। কিন্তু জমি সরকারি হওয়ায় আমি চরম ক্ষতির মুখে পড়েছি। এতে করে আমার দুই ছেলে রাগ করে আমাকে ছেড়ে চলে গেছে। আমি খুব অসহায় অবস্থায় জীবনযাপন করছি।'

 

এ বিষয়ে সাইফুল ইসলাম বলেন-'ওখানে একটা সিন্ডিকেট কাজ করে। ওটা আমার বাবা হাবিবুর রহমানের খরিদকৃত সম্পত্তি। এ নিয়ে আদালতে মামলা চলমান।'

 

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য মোহাম্মদ আমিন মাঝি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন-' বেলাল যে জমি কিনেছে ওটা সরকারি হওয়ায় এসিল্যান্ড স্যার এসে দখল উচ্ছেদ করেছে। বেলালের একটা দোচালা টিনের ঘর ছিলো ওটা ভেকো দিয়ে গুড়িয়ে দিয়েছে। '

এই বিভাগের আরো খবর