ঢাকা, শনিবার   ২৫ জুন ২০২২,   আষাঢ় ১১ ১৪২৯

ব্রেকিং:
চট্টগ্রাম, গাজীপুর, কক্সবাজার, নারায়ানগঞ্জ, পাবনা, টাঙ্গাইল ও ময়মনসিংহ ব্যুরো / জেলা প্রতিনিধি`র জন্য আগ্রহী প্রার্থীদের আবেদন পাঠানোর আহ্বান করা হচ্ছে। শিক্ষাগত যোগ্যতা- স্নাতক, অভিজ্ঞদের ক্ষেত্রে শিক্ষাগত যোগ্যতা শিথিল যোগ্য। দৈনিক প্রতিদিনের চিত্র পত্রিকার `প্রিন্ট এবং অনলাইন পোর্টাল`-এ প্রতিনিধি নিয়োগ পেতে অথবা `যেকোন বিষয়ে` আর্থিক লেনদেন না করার জন্য আগ্রহী প্রার্থীদের এবং প্রতিনিধিদের অনুরোধ করা হল।
পদ্মায় স্বপ্নপূরণের ক্ষণগণনা
১৮দিন
:
১৯ঘণ্টা
:
০৬মিনিট
:
১০সেকেন্ড
সর্বশেষ:
সবাইকে কৃতজ্ঞতা জানালেন প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর মধ্য দিয়ে দেশ নতুন যুগে প্রবেশ করেছে: শিক্ষামন্ত্রী মাথা নোয়াইনি, কখনো নোয়াবো না: প্রধানমন্ত্রী জনসভাস্থলে লাখো মানুষের ঢল দেশে বন্যায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৭৩ পদ্মা সেতুতে টোল দিলেন প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করা হলো স্বপ্নের পদ্মা সেতুর কারো বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই, বললেন প্রধানমন্ত্রী

আবারও বাড়তে পারে গ্যাসের দাম

প্রতিদিনের চিত্র বিডি ডেস্ক

প্রকাশিত: ২১ মার্চ ২০২২  

ছবি- সংগৃহীত।

ছবি- সংগৃহীত।

 
নিত্যপণ্যের দামের ঊর্ধ্বগতির মধ্যেই শুরু হলো গ্যাসের দাম বাড়ানোর গণশুনানি। প্রথম দিনে পেট্রোবাংলার দেওয়া প্রস্তাব আমলে নিলে গ্রাহকের ওপর চাপবে আরও বাড়বে ১১০ শতাংশ।

 

এছাড়া তিতাসসহ বিতরণ কোম্পানিগুলোর প্রস্তাব আরও আগ্রাসী। আবাসিকসহ সব খাতে গ্রাহক পর্যায়ে ১১৭ শতাংশ দাম বাড়াতে চায় তারা। তবে বিইআরসি চেয়ারম্যানের আশ্বাস, দাম সমন্বয়ে অবিবেচক হবে না কমিশন।

 

তিন বছরের মাথায় আবারও গ্যাসের দাম বাড়ানোর গণশুনানি এমন এক সময়ে শুরু হলো, যখন নিত্যপণ্যের অসহনীয় দামে নাভিশ্বাস সাধারণ মানুষ।

 

গণশুনানির প্রথম দিনে পাইকারি পর্যায়ে দাম বাড়ানোর প্রস্তাব তুলে ধরে রাষ্ট্রায়ত্ত তেল-গ্যাস প্রতিষ্ঠান পেট্রোবাংলা। সংস্থাটির দাবি, এলএনজি আমদানি ও গ্যাসের উৎপাদন খরচসহ নানা কারণে বেড়েছে ব্যয়। পেট্রোবাংলার প্রস্তাব বাস্তব হলে ভোক্তাপর্যায়ে বাড়তি চাপবে আরও ১১০ শতাংশ।

 

প্রস্তাবটি তুলে ধরে পেট্রোবাংলার পরিচালক (অর্থ) বেনজামিন রিয়াজী বলেন, বর্তমানে গ্যাসের উৎপাদন ব্যয়, আমদানি ব্যয় এবং ট্যাক্স মিলিয়ে যে ব্যয় হচ্ছে, তার যৌক্তিকতা তুলে ধরার চেষ্টা করছি। এটি আমাদের বিধিগতভাবে আমাদের প্রস্তাব।

 

তবে গণশুনানিতে পেট্রোবাংলার প্রস্তাবের তীব্র বিরোধিতা করে ভোক্তা অধিকার সংগঠন ক্যাবসহ বিভিন্ন পক্ষ। প্রস্তাবটিকে অযৌক্তিক উল্লেখ করে ক্যাবের জ্বালানি উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. শামসুল আলম বলেন, তথ্য উপাত্তে দেখা গেছে, বিগত বছরে রাজস্ব বকেয়া ছিল। প্রস্তাবে এ তথ্যের বিশ্লেষণ না থাকায় প্রস্তাব গ্রহণযোগ্য ও যৌক্তিক হয়নি।

 

এ সময় দাম বাড়ানোর প্রস্তাবের বিভিন্ন দিক নিয়ে প্রশ্ন তোলেন বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের (বিইআরসি) চেয়ারম্যানও। মুনাফায় থাকার পরও তিতাসসহ গ্যাস বিতরণ কোম্পানিগুলো গ্রাহক পর্যায়ে ১১৭ শতাংশ দাম বাড়ানোর যৌক্তিকতার ব্যাখ্যা দাবি করে বিইআরসির চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল বলেন, দাম সমন্বয়ের ক্ষেত্রে অবিবেচক হবে না বিইআরসি।

এই বিভাগের আরো খবর