ঢাকা, বুধবার   ১০ আগস্ট ২০২২,   শ্রাবণ ২৬ ১৪২৯

ব্রেকিং:
চট্টগ্রাম, গাজীপুর, কক্সবাজার, নারায়ানগঞ্জ, পাবনা, টাঙ্গাইল ও ময়মনসিংহ ব্যুরো / জেলা প্রতিনিধি`র জন্য আগ্রহী প্রার্থীদের আবেদন পাঠানোর আহ্বান করা হচ্ছে। শিক্ষাগত যোগ্যতা- স্নাতক, অভিজ্ঞদের ক্ষেত্রে শিক্ষাগত যোগ্যতা শিথিল যোগ্য। দৈনিক প্রতিদিনের চিত্র পত্রিকার `প্রিন্ট এবং অনলাইন পোর্টাল`-এ প্রতিনিধি নিয়োগ পেতে অথবা `যেকোন বিষয়ে` আর্থিক লেনদেন না করার জন্য আগ্রহী প্রার্থীদের এবং প্রতিনিধিদের অনুরোধ করা হল।
সর্বশেষ:
বিশ্বকাপের জন্য আকর্ষণীয় জার্সি উন্মোচন ব্রাজিলের চার বছর পর মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানো শুরু আত্মঘাতী হামলায় পাকিস্তানের ৪ সেনা নিহত গাজায় অস্ত্রবিরতিতে জাতিসংঘের প্রশংসা আশুরার শোক মিছিলে নাইজেরিয়ার সেনাদের হামলা; বহু হতাহত ইসরাইলি দখলদারিত্ব শেষ না হওয়া পর্যন্ত আমাদের সংগ্রাম চলবে: হামাস ট্রাম্পের বাড়িতে এফবিআইয়ের অভিযান

কারো বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই, বললেন প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২৫ জুন ২০২২  

ছবি- সংগৃহীত।

ছবি- সংগৃহীত।


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বললেন, ‘আমার কারো বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই। কারো বিরুদ্ধে কোনো অনুযোগ নেই। যারা বলেছিলেন, এটা (পদ্মা সেতু করা) কখনোই সম্ভব না, এটা একটা স্বপ্ন মাত্র, ইত্যাদি ইত্যাদি...তাদের হয়তো চিন্তার দৈন্য আছে, আত্মবিশ্বাসের দৈন্য আছে। কিন্তু আজকের পর থেকে আমি মনে করি তাদেরও আত্মবিশ্বাস বাড়বে।’

 

পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষ্যে আয়োজিত সুধী সমাবেশে দেয়া বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

 

 

শনিবার (২৫ জুন) সকাল ১০টা ৪৮ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্য দেয়ার জন্য স্টেজে ওঠেন। এ সময় সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বক্তব্য শুরু করেন শেখ হাসিনা।

 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যখন সব প্রতিষ্ঠান অর্থায়ন থেকে সরে দাঁড়ালো আমি তখন পার্লামেন্টে দাঁড়িয়েও ঘোষণা দিয়েছিলাম, পদ্মা সেতু নিজের টাকায় করব, নিজস্ব অর্থায়নে করব। এ ঘোষণার পর আমার দেশবাসীর কাছ থেকে অভূতপূর্ব সাড়া পেয়েছিলাম। তারা আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন এটাই সবচেয়ে বড় শক্তি ছিল।
তিনি বলেন, জামিলুর রেজা সাহেবের নেতৃত্বে আমরা উপদেষ্টা কমিটি করেছিলাম। তারাও পিছু হটেননি। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা এগিয়ে এসেছিল। অনেকের মতামত ছিল, এ নিজস্ব অর্থায়নে আবার কীভাবে করব। ধারণা ছিল বাংলাদেশ সারাজীবন পরনির্ভরশীল থাকবে আর অন্যের দয়ায় চলতে হবে। জাতির পিতা আমাদের আত্মমর্যাদা নিয়ে বাঁচতে শিখিয়েছেন। আমি বলেছিলাম, আমরা নিজেদের টাকায় করতে পারব, ওটা তো জনগণেরই টাকা। বাংলাদেশের জনগণই আমার সাহসের ঠিকানা, বাংলাদেশের জনগণকে আমি স্যালুট জানাই।

 

যারা বলেছিলেন, এটা কখনোই সম্ভব না, এটা একটা স্বপ্ন মাত্র, ইত্যাদি ইত্যাদি ... যাহোক, আমার কারো বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই। কারো বিরুদ্ধে কোনো অনুযোগ নেই। তাদের হয়তো চিন্তার দৈন্যতা আছে, আত্মবিশ্বাসের দৈন্যতা আছে।  কিন্তু আজকের পর থেকে আমি মনে করি তাদেরও আত্মবিশ্বাস বাড়বে।

 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, মিথ্যা অপবাদ দিয়ে, দুর্নীতির অপবাদ দিয়ে কীভাবে একটি পরিবারকে মানসিক যন্ত্রণা দিয়েছে। সেই যন্ত্রণা ভোগ করেছে আমার বোন শেখ রেহানা, আমার ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়, আমার মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ, আমার উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমান, সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনসহ এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাই যন্ত্রণা ভোগ করেছে। কিন্তু আল্লাহর অশেষ রহমত, সত্যের জয় হয়েছে।

 

এ সময় সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে তিনি বলেন, আমি কৃতজ্ঞতা জানাই দেশবাসীর প্রতি যারা সেদিন আমার পাশে দাঁড়িয়েছিল। যারা এখানে বসবাস করতো তারা জমি ছেড়ে দিয়েছে। তাদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞতা জানাই। যদিও তাদের পুনর্বাসন করা হয়েছে।

 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, অনেক বাধা উপেক্ষা করে আজকে ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করে পদ্মা সেতু নির্মাণ করা হয়েছে। আমাদের জেদ ছিল এ সেতু নির্মাণ করবই। সেই আত্মবিশ্বাসে আজকে আলোর পথে যাত্রা করতে সক্ষম হয়েছি। যদিও মিথ্যা অভিযোগে দুই বছর দেরি হয়েছে। তবুও আমরা দমে যাইনি। আমরা বিজয়ী হয়েছি। সুকান্ত ভট্টাচার্যের কথায় বলতে চাই, আমরা মাথা নোয়াবার নই। আমরা কখনো মাথা নোয়াব না। শেখ মুজিবুর রহমান কখনো মাথা নত করে চলেননি। আমরাও কখনো নত থাকব না।

এই বিভাগের আরো খবর