ঢাকা, শনিবার   ২৫ জুন ২০২২,   আষাঢ় ১১ ১৪২৯

ব্রেকিং:
চট্টগ্রাম, গাজীপুর, কক্সবাজার, নারায়ানগঞ্জ, পাবনা, টাঙ্গাইল ও ময়মনসিংহ ব্যুরো / জেলা প্রতিনিধি`র জন্য আগ্রহী প্রার্থীদের আবেদন পাঠানোর আহ্বান করা হচ্ছে। শিক্ষাগত যোগ্যতা- স্নাতক, অভিজ্ঞদের ক্ষেত্রে শিক্ষাগত যোগ্যতা শিথিল যোগ্য। দৈনিক প্রতিদিনের চিত্র পত্রিকার `প্রিন্ট এবং অনলাইন পোর্টাল`-এ প্রতিনিধি নিয়োগ পেতে অথবা `যেকোন বিষয়ে` আর্থিক লেনদেন না করার জন্য আগ্রহী প্রার্থীদের এবং প্রতিনিধিদের অনুরোধ করা হল।
পদ্মায় স্বপ্নপূরণের ক্ষণগণনা
১৮দিন
:
১৯ঘণ্টা
:
০৬মিনিট
:
১০সেকেন্ড
সর্বশেষ:
সবাইকে কৃতজ্ঞতা জানালেন প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর মধ্য দিয়ে দেশ নতুন যুগে প্রবেশ করেছে: শিক্ষামন্ত্রী মাথা নোয়াইনি, কখনো নোয়াবো না: প্রধানমন্ত্রী জনসভাস্থলে লাখো মানুষের ঢল দেশে বন্যায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৭৩ পদ্মা সেতুতে টোল দিলেন প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করা হলো স্বপ্নের পদ্মা সেতুর কারো বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই, বললেন প্রধানমন্ত্রী

শিশু ধর্ষণের দায়ে মসজিদের ইমামের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

প্রতিদিনের চিত্র বিডি ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৬ মে ২০২২  

ছবি- প্রতিদিনেরচিত্র বিডি।

ছবি- প্রতিদিনেরচিত্র বিডি।

 

রংপুরে শিশু ধর্ষণের দায়ে এক মসজিদের ইমামকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৬ মে) দুপুরে রংপুরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালত-৩ এর বিচারক এম আলী আহাম্মেদ এ রায় দেন।

 

কারাদণ্ডপ্রাপ্ত ওই ইমামের নাম আতিকুল ইসলাম ওরফে আতিক হুজুর। তিনি জেলার তারাগঞ্জ উপজেলার ঘনিরামপুর ঝাকুয়া পাড়া গ্রামের ঝাকুয়াপাড়া নতুন মসজিদের ইমাম।

 

মামলার বিবরণে জানা গেছে, ২০২০ সালের ৪ নভেম্বর সকাল ৭ টার দিকে তারাগঞ্জ উপজেলার ঘনিরামপুর ঝাকুয়া পাড়া গ্রামে ১০ বছর বয়সী শিশু বাড়ির পাশে ঝাকুয়াপাড়া নতুন মসজিদের ইমাম আতিকুল ইসলামে কাছে অন্যান্য ছেলে-মেয়েদের সঙ্গে মসজিদে আরবি পড়তে যান। সকাল ৮ টার দিকে আতিক হুজুর অন্যান্য ছেলে-মেয়েদের ছুটি দিলেও ভুক্তভোগী শিশু কন্যাকে পড়ে যেতে বলেন। এরপর শিশুটিকে আতিকুল ইসলাম মসজিদ সংলগ্ন তার ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করেন। এ ঘটনা কাউকে না জানানোর জন্য ভুক্তভোগী শিশুকে হুমকি দেন। পরে বাড়িতে যাওয়ার পর শিশুটির প্রচণ্ড রক্তক্ষরণ শুরু হলে বিষয়টি জানাজানি হয়। এরপর এলাকাবাসী আতিকুলকে আটক করে। গুরুতর আহত অবস্থায় ভুক্তভোগী শিশুটিকে প্রথমে তারাগঞ্জ হাসপাতালে পরে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় শিশুটির বাবা বাদী হয়ে তারাগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন।

 

পুলিশ তদন্ত শেষে আসামির বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করে। মামলায় ১০ জন সাক্ষী আদালতে সাক্ষ্য প্রদান করেন। সাক্ষীদের জেরা ও শুনানি শেষে বিচারক আসামি আতিকুল ইসলামকে দোষী সাব্যস্ত করে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড এবং ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেন। রায় ঘোষণার সময় আসামি কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন। পরে তাকে কড়া পুলিশি পাহারায় আদালতের হাজতে নিয়ে যাওয়া হয়।

 

মামলায় সরকার পক্ষের আইনজীবী বিশেষ পিপি তায়েজুর রহমান লাইজু বলেন, ‘আমরা ন্যায় বিচার পেয়েছি।’ তবে রায় ঘোষণার সময় আসামিপক্ষের কোন আইনজীবী আদালতে উপস্থিত ছিলেন না।

 

এই বিভাগের আরো খবর